রাত ১১:০১, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







পরমাণু ইস্যুতে ভিয়েনা সংলাপকে ‘ইতিবাচক’ বললেন ইইউ’র প্রতিনিধি

অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় ইরানের পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের প্রথম দিনের আলোচনাকে ‘অত্যন্ত ইতিবাচক’ বলে বর্ণনা করেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক উপপ্রধান এনরিক মুরা।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বৈঠকে অংশগ্রহণকারী সকল পক্ষ ইরানের বক্তব্য ও স্পর্শকাতরতা আগ্রহের সঙ্গে শুনেছে এবং ইরানি প্রতিনিধিদলও একথা স্পষ্ট করতে পেরেছে যে, তারা আন্তরিকভাবেই পরমাণু সমঝোতাকে আবারও কার্যকর করতে আগ্রহী।

ইউরোপের এই শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক বলেন, ইরানি প্রতিনিধিদল যথারীতি দেশটির ওপর আরোপিত সব নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানিয়েছে। একই সঙ্গে ইরানের সাবেক সরকারের কূটনীতিকরা এর আগে ছয় দফা আলোচনা করে যেসব বিষয়ে ঐক্যমত্যে পৌঁছেছেন সেসব বিষয়কেও প্রত্যাখ্যান করেনি ইরানি প্রতিনিধিদল।

ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি সরকার চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুন মাস পর্যন্ত পাঁচ জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ছয় দফা আলোচনা করেছে। জুন মাসে ইরানে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে ওই আলোচনা বন্ধ ছিল।

সম্প্রতি নতুন প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রায়িসির পক্ষ থেকে আবার ভিয়েনা আলোচনায় প্রতিনিধি পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয় এবং সে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গতকাল সোমবার পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের সংলাপ শুরু হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১‌৫ সালে জাতিসংঘের পাঁচ স্থায়ী সদস্য দেশ ও জার্মানিকে নিয়ে গঠিত ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে পরমাণু সমঝোতা সই করে ইরান। ২০১৮ সাল পর্যন্ত এ সমঝোতা কার্যকর ছিল। কিন্তু ওই বছর মার্কিন সরকার আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে এই সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গেলে এটি নিয়ে অচলাবস্থা দেখা দেয় এবং ধীরে ধীরে এটি সম্পূর্ণ অকার্যকর হয়ে পড়ে।

এ অবস্থায় এই সমঝোতাকে আবার কার্যকর করার লক্ষ্যে সোমবার থেকে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় আমেরিকাকে বাদ দিয়ে বাকি পাঁচ দেশের সঙ্গে ইরানের সংলাপ শুরু হয়েছে। সংলাপে আমেরিকা সরাসরি অংশগ্রহণের আগ্রহ প্রকাশ করলেও তেহরানের আপত্তির কারণে দেশটিকে আলোচনার বাইরে রাখা হয়েছে। সূত্র: পার্সটুডে