সকাল ৬:৩৩, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







কর্মীদের সুখে-দুঃখে কিভাবে পাশে দাঁড়াতে হয় তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত অপু উকিল: আহমেদ ফিরোজ

পানকৌরি নিউজ: দলের কর্মীদের কিভাবে ভালোবাসা যায়, তাদের সুখে-দুঃখে কিভাবে পাশে দাঁড়াতে হয় তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগ, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা অপু উকিল এবং রাজনীতির জাদুর কাঠিতে অপু উকিল দেবী হয়ে লাখো পূজারী তৈরি করেছেন।

বুধবার (০৩ আগস্ট) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া এক স্ট্যাটাসে এভাবেই স্মৃতিচারণ করেন সাবেক সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, কেন্দ্রীয় কমিটি ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী যুবলীগ আহমেদ ফিরোজ।

তিনি বলেন, ৮০-এর দশকে বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে অনেক যেতাম। আমি তখন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে গেলেই আপার সাথে দেখা করতাম ও চা খেতাম। তখন আপার প্রটোকল অফিসার ছিলেন সুদর্শন মিষ্টভাষী আমার প্রিয় সেন্টু ভাই। আপার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকতেন কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম এর শ্যালক দুলাল ভাই এবং সেন্টু ভাই। তিনজনের সাথেই ছিল আমার নিবিড় সম্পর্ক।

একদিন বিকেলে ধানমন্ডি ৩২ এ আপার রুমে ঢুকলাম। আপার ইশারায় বসলাম। তখন সেখানে বসা দেখলাম এক বৃদ্ধা রমণী এবং সাথে এক সুন্দরী তরুণী। একটু পরে আপার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে চলে গেলেন। উনারা চলে যাবার পরে আমি আপাকে জিজ্ঞেস করলাম, আপা ওনারা কে? আপা আমাকে বললেন, উনি অসীমের মা। (অসীম কুমার উকিল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি) অসীমের নতুন বউকে নিয়ে এসেছে আমার আশীর্বাদ নেবার জন্য। সেদিন ৩২ নম্বরে আপার সামনে আমার প্রথম দেখা সেই নতুন বউটি আমাদের আজকের অপু উকিল।

আহমেদ ফিরোজ বলেন, অসীম কুমার উকিল এর সেই নতুন বউ থেকে অপু উকিল আজকে বাংলাদেশের রাজনীতিতে গড়ে তুলেছেন এক শক্তিশালী অবস্থান। রাজনীতির ময়দানে, রাস্তায় দুর্দান্ত সাহসী ভূমিকা রেখে গড়ে তুলেছেন এক বিশাল নেটওয়ার্ক। বিএনপি বিরোধী প্রতিটি আন্দোলনে সিংহের মতো গর্জে উঠে বিশাল কর্মী বাহিনী নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তেন। বঙ্গবন্ধু কন্যা এবং দলের প্রতি নিরলস হয়ে সাহসী ভূমিকা পালন করার জন্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনা ওনাকে জাতীয় সংসদ সদস্য এবং পরবর্তীতে যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব অর্পণ করেন।

দায়িত্ব পাওয়ার পরে নিজের যোগ্যতায় নিজের সাংগঠনিক দক্ষতায় তৈরি করেছেন এক বিশাল কর্মী বাহিনী। হয়ে উঠেছেন কর্মীবান্ধব নেত্রী। দলের কর্মীদের কিভাবে ভালোবাসা যায়, কিভাবে কর্মীদের ধরে রাখা যায়, কর্মীদের সুখে-দুঃখে কিভাবে পাশে দাঁড়াতে হয় তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত অপু উকিল। জাতীয় দিবসগুলোতে ও ইদে নেতা কর্মীদের মাঝে অপুদির উপহার সামগ্রী বিতরণ সত্যিই প্রশংসার দাবী রাখে।

আহমেদ ফিরোজ আরও বলেন, যুব মহিলা লীগের বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও সম্মেলনে কর্মীদের সাথে উনি যেভাবে মিশে আছেন এবং হই হুল্লোর আনন্দ-উৎসব করে কর্মীদের মাঝে যে প্রানচঞ্চলতা সৃষ্টি করেন তা সত্যিই দেখার মতো। নেতা এবং কর্মীদের মধ্যে এমন সম্পর্কই হওয়া উচিত। আমার ফেসবুকে ১০০% মেয়ে বন্ধুর মধ্যে ৭০% মেয়ে বন্ধুই যুব মহিলা লীগের। তাদের সাথে প্রায়ই আমার কথা হয়। সবাই অপু উকিল বলতে অজ্ঞান। রাজনীতির জাদুর কাঠিতে অপু উকিল তাদের হৃদয়ে আসন করে নিয়েছেন। আমার ভাবতে ভালো লাগে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে আপার সামনে দেখা সেই সুন্দরী যুব মহিলা টি আজকে দেবী হয়ে লাখো পূজারী তৈরি করেছেন। যেই পূজারীরা দেবী অপু উকিল ছাড়া অন্য কিছু ভাবতে পারে না। দেবী পূজারীর এবং নেতাকর্মীর বন্ধন আরো সুদৃঢ় হোক এই কামনা রইলো।
শুভকামনা অপুদি। অজস্র ভালবাসা।

বর্তমান আহমেদ ফিরোজ, সহ সভাপতি, অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসোসিয়েশন (আয়েবা ), কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য ইউরোপিয়ান প্রেস ফেডারেশন, মহাসচিব, আন্তর্জাতিক বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটিতে দায়িত্ব পালন করছেন।