ভোর ৫:০৮, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







এইডস আক্রান্তদের ১৮ শতাংশ বিদেশ থেকে আসা’

এইচআইভি এইডস এ আক্রান্তদের ১৮ শতাংশ বিদেশ থেকে আসা। তারা দেশ থেকে পূর্ণাঙ্গ সুস্থতার রিপোর্ট নিয়ে বিদেশ যান। কিন্তু অনেকটা বাধাহীনভাবেই এসব রোগী দেশে প্রবেশ করছেন।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে বিশ্ব সাহিত্যকেন্দ্রে কমিউনিটি ফোরাম অব বাংলাদেশ আয়োজিত ‘এইচআইভি এইডসে আক্রান্ত ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠী’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এসব তথ্য জানান।

বক্তারা বলেন, দেশের সাধারণ জনগোষ্ঠীর ৩০ শতাংশ এইচআইভি এইডের ঝুঁকিতে আছেন। এরা আগে এইডস আক্রান্ত রোগীদের সংস্পর্শে এসেছিলেন। ১২ লাখ ৪১ হাজার পরীক্ষা করা হয়েছে, এর মধ্যে ৯ লাখ ৫৫ হাজারই বিদেশগামী। দেশ থেকে যারা যাচ্ছেন তারা পরীক্ষা করেই যাচ্ছেন। কিন্তু যারা দেশে আসছেন তাদের কোনো পরীক্ষা করা হচ্ছে না। বিমানবন্দরে পরীক্ষার ব্যবস্থা না থাকায় এইডস আক্রান্তরা সহজেই দেশে প্রবেশ করছেন।

ইউনাইটেড ন্যাশনস অফিস অন ড্রাগস অ্যান্ড ক্রাইমের ন্যাশনাল প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর মো. আবু তাহের বলেন, এইডস আক্রান্তদের বিশাল অংশ মাদকসেবী। তৃতীয় লিঙ্গের মানুষগুলো এইডস এ আক্রান্ত হওয়ার অন্যতম কারণ। তাদের প্রতি আমাদের অবহেলা রয়েছে। তারা অসুস্থ হলে আমরা হাসপাতালে ঢুকতে দিই না। আর যদি এইডস আক্রান্ত হয়ে আসে তাহলে তো কথাই নেই। এ বিষয়েও আমাদের ভাবতে হবে।

ইউএনএইডসের কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. সায়মা খান বলেন, নারী অভিবাসী কর্মীরা কাজ করতে গিয়ে যেসব সমস্যা পার করেন তা খুবই ভয়াবহ। বর্তমানে তাদের মধ্যে এইচআইভি আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। যৌনকর্মী, সমকামী, মাদকাসক্তদের মধ্যেও এইডস আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। সেক্স ওয়ার্কারদের মধ্যে ৭০ শতাংশই এইচআইভি এইডসে আক্রান্ত। সম্প্রতি আমরা দেখেছি, নতুন করে ৯৭৪ জনের এইচআইভি শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১৮ শতাংশ হলো বিদেশ থেকে আসা। বিশ্বব্যাপী পাঁচ শতাংশ জনগোষ্ঠীর মধ্যে এইচআইভি সংক্রমণ রয়েছে।