সকাল ৭:২৮, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







আধুনিকায়ন করা হচ্ছে রাণীনগর উপজেলার একমাত্র শিশু পার্কটি

বিকাশ চন্দ্র প্রাং, নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে দীর্ঘদিন অবহেলা ও অযত্নে পরিত্যক্ত পড়ে থাকা একমাত্র সরকারি শিশু পার্কটি অবশেষে আধুনিকায়নসহ শিশুবান্ধব করা হচ্ছে। এই উদ্যোগটি গ্রহণ করেছেন সদ্য যোগদানকৃত বর্তমান উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহাদাত হুসেইন। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সচেতন মহল।

উপজেলায় সেবা নিতে আসা একডালা ইউনিয়নের শিয়ালা গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল খালেক বলেন, বর্তমানে উপজেলার শিশু পার্কটি গণ টয়লেট ও ডাস্টবিন হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। আমরা উপজেলার দূর-দূরান্ত থেকে পুরো দিনের জন্য উপজেলায় কোন কাজে আসলে নিজেরাসহ শিশুদের নিয়ে বসে সময় কাটানোর জন্য কোন ভালো জায়গা নেই। শিশুরা উপজেলায় এসে যে একটু বিনোদন নিবে তার কোন উপায় নেই। তবে উপজেলার একমাত্র শিশু পার্কটিকে আবার নতুন করে শিশু বান্ধব করা হচ্ছে এটি অত্যন্ত ভালো একটি উদ্যোগ। পার্কটি আধুনিকায়ন করার পর আমরা যারা স্থানীয় ও দর্শনার্থীরা আছি এই পার্কটি সব সময় পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্বও কিন্তু আমাদের।

উপজেলা পরিষদের কর্মচারী আমজাদ হোসেন বলেন, যারা উপজেলা পরিষদে চাকরী করি এবং যারা আবাসিক কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা রয়েছি বিকেলে কাজ শেষে শিশুদের নিয়ে পরিষদের ভিতরে কোথাও বসে সময় কাটানোর মতো সুন্দর জায়গা নেই। শিশুদের শুধু ঘরের ভিতরে ও পরিষদের রাস্তা-ঘাটেই খেলাধূলা করে বিনোদন নিতে হয়। কিন্তু পরিত্যক্ত এই সরকারি শিশু পার্কটি আধুনিকায়ন করে শিশু বান্ধব করা হলে শিশুদের বুদ্ধি বিকাশে এই পার্কটি অত্যন্ত সহায়ক ভূমিকা রাখবে। এমন উদ্যোগ গ্রহণ করায় ইউএনও স্যারকে ধন্যবাদ জানাই।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহাদাত হুসেইন বলেন, আমি এই উপজেলায় যোগদানের পর থেকেই পার্কটি সংস্কারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। বছরের পর বছর পার্কটির কোন সংস্কার না করায় জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে ছিল। এতে উপজেলায় বসবাসরত লোকজন বিশেষ করে শিশুদের বিনোদন বা অবসর সময় কাটানোর কোন জায়গা ছিল না। তাদের কথা চিন্তা করেই পার্কটি সংস্কারে হাত দিয়েছি। পুরোপুরি সংস্কার হলে এখানে শিশুরা সুন্দর সময় কাটাতে পারবে। এখানে শিশুদের জন্য বিভিন্ন ধরনের রাইড, স্লিপার, দোলনা ও অভিভাবকদের জন্য বসার সুন্দর ব্যবস্থাও করা হবে। ফুলের গাছ লাগিয়ে ও প্রাচীরগুলো নতুন করে রঙ করে সৌন্দর্য বর্ধনের পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছে। আমি আশাবাদি উপজেলাবাসী অতি দ্রুতই জীর্নশীর্ন এই পার্কটিকে নতুন রূপে দেখতে পাবেন।