রাত ৩:০৪, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







শেখ কামাল বাঙালি জাতির ইতিহাসে চিরভাস্বর হয়ে থাকবেন: অধ্যাপক অপু উকিল

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের কোল আলোকিত করে পৃথিবীতে এসেছিলেন শেখ কামাল। মাত্র ২৬ বছরের জীবনে তিনি দেশ ও সমাজের জন্য যে অবদান রেখে গেছে সেটি শুধুমাত্র কর্ম নয় বরং এটি হাজার হাজার তরুণদের উজ্জীবিত হওয়ার মূলমন্ত্র। যারা তাঁর সান্নিধ্যে এসেছেন তারা অনুভব করেছেন তাঁর স্নিগ্ধ ও হাস্যোজ্জ্বল মমত্ববোধ।

বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী শেখ কামালের ৭৩ তম জন্মবাষিকী আগামীকাল শুক্রবার। ১৯৪৯ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন পাঁচ ভাই বোনের মধ্যে দ্বিতীয়।

বাঙালির মুক্তির আন্দোলন করতে গিয়ে জাতির পিতার জীবনের দীর্ঘ সময় কেটেছে কারাগারে। ৫২ সালে কারাগার থেকে বের হওয়ার পর ছেলে কামাল সম্পর্কে একটি হৃদয়স্পর্শী বর্ণনায় বঙ্গবন্ধু তাঁর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ এর ২০৯ পৃষ্ঠায় লিখেছেন- “একদিন সকালে আমি আর রেনু বিছানায় বসে গল্প করছিলাম। হাচু (শেখ হাসিনা) ও কামাল নিচে খেলছিল। হাচু মাঝে মাঝে খেলা ফেলে আমার কাছে আসে আর আব্বা আব্বা বলে ডাকে। কামাল চেয়ে থাকে। এক সময় কামাল হাসিনাকে বলছে, ‘হাচু আপা, হাচু আপা, তোমার আব্বাকে আমি একটু আব্বা বলে ডাকি?’ আমি আর রেনু দুজনেই শুনলাম। আস্তে আস্তে বিছানা থেকে উঠে যেয়ে ওকে কোলে নিয়ে বললাম আমি তো তোমারও আব্বা। কামাল আমার কাছে আসতে চাইত না। আজ গলা ধরে পড়ে রইল। বুঝতে পারলাম এখন আর ও সহ্য করতে পারছে না। নিজের ছেলেও অনেকদিন না দেখলে ভুলে যায়”।

মাত্র ২২ বছর বয়সে স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র থাকা অবস্থায় মহান মুক্তিযুদ্ধে শেখ কামালের অবদান ছিল বীরোচিত। বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন শেখ কামাল-এর সংক্ষিপ্ত জীবনী, এবিএম সরওয়ার-ই-আলম সরকার তথ্যসূত্রে জানা যায়, ২৫শে মার্চ কাল রাতে পাকহানাদার বাহিনী ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কস্থ বাসভবন আক্রমণ করার পূর্ব মুহূর্তে বাড়ি থেকে বের হয়ে সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। তিনি পাকহানাদার বাহিনী ও রাজাকারদের চোখ এড়িয়ে গোপালগঞ্জ হয়ে ইছামতী নদী পাড়ি দিয়ে সাতক্ষীরা জেলার সীমান্ত পার হয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ পৌঁছান।

শেখ কামাল স্বাধীনতার পর বিপর্যস্ত দেশকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে পুনর্গঠনের কাজে নিজেকে সম্পূর্ণরূপে আত্মনিয়োগ করেন।

বাংলাদেশের আধুনিক ক্রীড়াঙ্গনের রূপকার বলা হয় শেখ কামালকে। ১৯৭২ সালে ঐতিহ্যবাহী আবাহনী ক্রীড়াচক্র প্রতিষ্ঠা করেন তিনি। তার স্ত্রী সুলতানা কামালও বাংলাদেশের ক্রীড়াক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। তাদের হাত ধরেই নতুন ধারার সূচনা হয় এদেশের ক্রীড়াঙ্গনের।

বন্ধুবৎসল শেখ কামাল জীবনযাপনে ছিলেন খুবই সাধারণ। অন্যদের ভাল কাজে উৎসাহ দেওয়া তাঁর অন্যতম ও স্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য ছিল। দেশের স্থপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পুত্র হওয়া সত্ত্বেও কোনরূপ ক্ষমতার অপব্যবহার করেননি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ কামালের প্রতিভার বর্ণনায় বলেন, একটা মানুষের মধ্যে এই যে বহুমুখী প্রতিভা। এটা সত্যিই বিরল ছিল। একদিকে যেমন ক্রীড়া সংগঠক ছিল অন্যদিকে ছিলো সাংস্কৃতিমনা। পাশাপাশি রাজনৈতিক অঙ্গনে তার ভূমিকা সেটাও অপরিসীম।

শেখ কামাল ঢাকার শাহীন স্কুল থেকে মাধ্যমিক এবং ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেন। পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি অর্জন করেন।

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট নারকীয় হত্যাযজ্ঞের প্রধান লক্ষ্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলেও এ দিনের ঘটনায় প্রথম শহীদ হন শেখ কামাল। বজলুল হুদা তার স্টেনগান দিয়ে বঙ্গবন্ধুর বড় ছেলে শেখ কামালকে হত্যা করে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে ঘাতকদের বুলেট বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী শেখ কামালের শারীরিক মৃত্যু ঘটালেও তিনি মৃত্যুঞ্জয়ী হয়ে আছেন এ দেশের বাঙ্গালির হৃদয়ে। পৃথিবীতে মানুষের মতো মানুষরা কখনও হারিয়ে বা নিঃশেষ হয়ে যান না। ইতিহাস তাদের মনে রাখে দিনের পর দিন। শেখ কামালও হারিয়ে যাননি কোনদিন যাবেও না। বহুমাত্রিক গুণে-গুণান্বিত এই অসাধারণ ব্যক্তিত্ব, বাঙালির চিন্তা-চেতনায় ও জাতির ইতিহাসে চিরভাস্বর হয়ে থাকবেন। তাঁর জন্ম ও কর্মময় জীবন আমাদের কাছে অতুলনীয়, সততার কষ্টিপাথরে তিনি ছিলেন অনন্য।
বঙ্গবন্ধু পরিবারের সকলের নৈতিক অবস্থান এবং ক্ষমতার প্রতি মোহমুক্ত মনোভাব, এই পরিবারকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে। ফলে অপপ্রচার চালিয়ে বঙ্গবন্ধুকে কলঙ্কিত করার চেষ্টা করলেও জনগণ সে মিথ্যাচার মেনে নেয়নি। এ কারণে বঙ্গবন্ধু পরিবার আজ অনেক শক্তিশালী। তৃতীয় প্রজন্মে এসেও পরিবারটি আজও উজ্জ্বল।

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা আজ পৃথিবীর অন্যতম ক্ষমতাধর ও সফল রাষ্ট্রনায়ক। বঙ্গবন্ধুর তৃতীয় প্রজন্ম আজ শুধু বাংলাদেশেই অবদান রাখছেন না, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করছেন।

অসামান্য সাংগঠনিক দক্ষতার অধিকারী শেখ কামালের ৭৩তম জন্মদিনে শ্রদ্ধাঞ্জলি।

অধ্যাপক অপু উকিল, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগ।