রাত ৪:০৯, ১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







ত্রিশালে অরক্ষিত রেলক্রসিং, ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার করছে যানবাহনসহ মানুষ

শাহ্ আলম ভূঁইয়া, ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: ত্রিশাল-নান্দাইল সড়কে আউলিয়া নগরে তিন বছর ধরে অরক্ষিত অবস্হায় আছে রেলক্রসিং। এই রেলক্রসিংয়ের বেরিয়ার না থাকার কারণে ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার করছে যানবাহনসহ সাধারণ মানুষ।

সরেজমিনে দেখা যায়, ঝুঁকি নিয়ে পথচারীসহ হাজারো ছোট-বড় যানবাহন চলাচল করছে।

ময়মনসিংহ হয়ে ঢাকাগামী এ রেলপথে সারা দিন ট্রেন যাতায়াত করে। ট্রাফিক গেটম্যান লোহার চেইন দিয়ে যানবাহন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন। দিনের বেলা চেইন দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা গেলেও রাতের বেলা হয় সমস্যা। অনেকে লোহার চেইন না দেখেই রেলক্রসিং পারাপার হচ্ছেন। এতে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় দুর্ঘটনা।

সিএনজিচালক বাদল মিয়া জানান, রেলক্রসিংয়ে গেট আটকানোর জন্য বেরিয়ার অনেক দিন ধরে নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। আমরা ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার হচ্ছি। লোহার চেইন দিয়ে আটকালেও অনেকেই তা মানছে না। এখানে ছোট-খাটো দুর্ঘটনা সব সময় লেগেই আছে। গেটম্যান সব সময় থাকেন না। রাতের বেলায় আরো বেশি সমস্যা হয়, যানবাহনের লাইট না থাকার কারণে চেইন দেখা যায় না। গাড়ি না থেমে চেইন ছিঁড়ে নিয়ে চলে যায়।

কয়েকজন স্কুল শিক্ষার্থী বলেন, আমাদের স্কুল রেলওয়ে স্টেশনের কাছাকাছি। অনেক দিন ধরে দেখছি রেলক্রসিংয়ের বেড়িয়ার নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। গেইটম্যান লোহার চেইন দিয়ে রাস্তা আটকান। চেইন অনেক সময় দেখা যায় না, তাই প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা লেগেই আছে।

স্হানীয় কয়েক জন এলাকাবাসী জানান, কয়েক দিন আগে এক মোটরসাইকেল আরোহী দ্রুতগতিতে মোটরসাইকেল নিয়ে পার হতে চাইলে চেইনে আটকে ব্যথা পান।

ট্রাফিক গেটম্যান মোশারফ হোসেন বলেন, এখানে দুটি বেরিয়ার ছিল। একটি অনেক দিন যাবৎ নষ্ট। আরেকটি ঝং ধরে ভেঙে পড়ে গেছে। কতৃ‌র্পক্ষকে জানিয়েছি। তারা এখনো কোনো ব্যবস্হা নিচ্ছেন না। লোহার চেইন দিয়ে কোনো রকম আটকানোর ব্যবস্হা করেছি। কিন্তু অনেকেই লোহার চেইন অতিক্রম করে চলে যায়। রাতের বেলা চেইন না দেখে অনেকেই দুর্ঘটনার শিকার হয়। আর এখানে কোনো ট্রাফিক বক্স নেই। কতৃ‌র্পক্ষকে অনেক বার জানিয়েছি।

আউলিয়া নগর স্টেশন মাস্টার হাসান আজিজুর রহমান বলেন, এটা আমাদের রেলওয়ে ট্রাফিক বিভাগের আন্ডারে। আমি তাদেরকে অনেক বার এ বিষয়ে জানিয়েছি। তারা বলেছে বাজেট নেই। অনেক দিন ধরে বেরিয়ার নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। আর এখানে গেটম্যান আছে, কিন্তু ট্রাফিক বক্স না থাকার কারণে অসুবিধা হচ্ছে। আমরা অনেক দিন নিজ উদ্যোগে বাঁশ দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করেছি। এখন গেইটম্যান লোহার শিকল দিয়ে রেলক্রসিং নিয়ন্ত্রণ করছে। এটা দির্ঘদিন ধরে অরক্ষিত অবস্হায় রয়েছে।