বিকাল ৪:২৭, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







টিপু হত্যা পরিকল্পনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে মুসা

শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম টিপু এবং কলেজ ছাত্রী সামিয়া আফনান প্রীতি হত্যার ঘটনায় বগুড়া থেকে গ্রেপ্তার শুটার মাসুম মোহাম্মদ ওরফে আকাশের স্বীকারোক্তিমূলক জবাববন্দিতে মূল পরিকল্পনাকারী ও সমন্বয়কারী হিসেবে সুমন শিকদার ওরফে মুসার নাম আসে।

পরে জানা যায়, মুসা ঘটনার আগেই ১২ মার্চ দেশ ছেড়ে সংযুক্ত আরব আমিরাত চলে যান। তার সন্ধান পেতে ৬ এপ্রিল পুলিশ সদরদপ্তরের এনসিবি শাখায় যোগাযোগ করা হয়।

তিনি আরও বলেন, পুলিশ সদরদপ্তর ৮ এপ্রিল মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে ইন্টারপোলের মাধ্যমে যোগাযোগ শুরু করে। এরমধ্যে ৮ মে জানা যায়, মুসা দুবাই থেকে ওমানে প্রবেশ করেছেন। ইন্টারপোলের ওমান পুলিশ এনসিবির সহযোগিতায় গত ১২ মে মুসাকে গ্রেপ্তার করা হয়। বাংলাদেশ পুলিশের একটি টিম ওমানে গিয়ে বৃহস্পতিবার মুসাকে দেশে ফিরিয়ে আনে।

ডিবি প্রধান বলেন, মুসাকে না পেয়ে মামলার তদন্তে হিমশিম খাচ্ছিলাম। তবে এনসিবির মাধ্যমে ইন্টারপোলের সহায়তায় মুসাকে ওমান থেকে দেশে আনা হয়েছে। তাকে আদালতে সোপর্দ করে ১৫ দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৩ জনকে সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এখন তদন্তে কার দায় আছে, কার নেই অথবা কে বাদ বা যুক্ত হবে, সেটি খতিয়ে দেখা হবে। মুসাকে গ্রেপ্তারের মাধ্যমে আমরা মামলাটি এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবো।

এক প্রশ্নের জবাবে ডিবি প্রধান বলেন, শুটার আকাশের জবানবন্দিতে মুসার নাম আসে। এছাড়া তদন্তে ঘটনায় মুসার সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি আসছে। মুসাকে জিজ্ঞাসাবাদে বিস্তারিত জানা যাবে। তবে প্রাথমিকভাবে জেনেছি, মুসা পরিকল্পনায় জড়িত।