সন্ধ্যা ৭:৪০, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







জয়পুরহাটে মাদ্রাসার ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আটক ৩

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরের গোপিনাথপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা ১৭ বছর বয়সী এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ছাত্রীটির বাবা বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করলে অভিযুক্ত তিন যুবককে আটক করে পুলিশ।

আজ শুক্রবার উপজেলার রুকিন্দীপুর ইউনিয়নে এ ঘটনাটি ঘটে।

আটককৃতরা হলো, জেলার ক্ষেতলাল উপজেলার বড়াইল ইউনিয়নের গোতাহাটশহর গ্রামের হবিবুর রহমানের ছেলে মাহবুব রহমান (২১) একই গ্রামের হযরত আলীর ছেলে অনিছুর রহমান (২২) ও আক্কেলপুর উপজেলার গোপিনাথপুর ইউনিয়নের আলী মামুদপুর গ্রামের লাকু মিয়ার ছেলে ভ্যান চালক সালেক (২৪)।

পুলিশ ও ভুক্তভোগীর পরিবার জানিয়েছে, মাদ্রাসার দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ছিল আজ। সেখান থেকে মেয়েটি নিখোঁজ হয়। পরে উপজেলার রুকিন্দীপুর ইউনিয়নের পালশা গ্রামের একটি পাটক্ষেতে জোরপূর্বক মেয়েটিকে পালাক্রমে ধর্ষণকালে মেয়েটির চিৎকারে স্থানীয়রা ধর্ষণকারীদের হাতেনাতে আটক করে পুলিশের নিকট সোপর্দ করে।

পরে তাদের থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা জানায়, ভ্যান চালক সালেক ছাত্রীটিকে ফুসলিয়ে ভ্যানে করে প্রথমে ক্ষেতলাল উপজেলার আছরাঙ্গা দিঘীতে নিয়ে যায়। সেখান থেকে ভ্যানচালক আরো দুই সহযোগীকে নিয়ে আক্কেলপুর উপজেলার পালশা গ্রামের একটি পাটক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে আক্কেলপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করে।

মাদ্রাসা ছাত্রীর পিতা বলেন, ‘আমার মেয়ের মানসিক সমস্যা রয়েছে। আমি মেয়েকে সাথে নিয়ে মাদ্রাসার বিদায় অনুষ্ঠানে দিয়ে আসি। সেখান থেকে আমার মেয়ে নিখোঁজ হয়। পরে খবর পেয়ে থানায় এসে মেয়ে মুখে সব ঘটনা শুনেছি।

আক্কেলপুর থানার অফিসার ইনচার্জ সাইদুর রহমান বলেন, ‘এঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। মেয়েটিকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে এবং অভিযুক্তদের জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে’।