সকাল ১১:০৩, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







নওগাঁয় সংবর্ধিত হলেন জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার প্রাপ্ত ক্রীড়াবিদ আলমগীর আলম

বিকাশ চন্দ্র প্রাং, নওগাঁ প্রতিনিধি: বিকেএসপির সিনিয়র হকি কোচ ও জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মো. আলমগীর আলম জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার-২০১৮ প্রাপ্তিতে নওগাঁ জেলা ফুটবল এ্যসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে সম্বর্ধনা প্রদান করা হয়েছে।

সোমবার (১৩জুন) বিকেলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জেলা ফুটবল এ্যসোসিয়েশনের সভাপতি মামনুর রশিদ মামুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সম্বর্ধনা প্রদান করেন জেলা ফুটবল এ্যসোসিয়েশনের প্রধান উপদেষ্টা ও জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান। এসময় সম্মাননা পেয়ে মো. আলমগীর আলম আবেগাল্পুত হয়ে পড়েন এবং সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক উত্তম কুমার রায়, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ইব্রাহীম হোসেন, জেলা ক্রীড়া কর্মকর্তা আবু জাফর মাহামুদুজ্জামান, জেলা ফুটবল এ্যসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক মাসুদ রানা, সহ: সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা তীতু, কোষাধাক্ষ্য আবুল কালাম আজাদ, জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মুর্শেদা ইফেৎ বানু। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা ফুটবল এ্যসোসিয়েশনের সদস্য মখলেছুর রহমান, মুশফিকুর রহমান, ফজলুল হক হিন্দোল প্রমূখ।

এসময় প্রধান অতিথি বলেন এমন ক্রীড়াবিদকে সম্বর্ধনা প্রদান করতে পেরে আমরা অনেক খুশি। নিজেকে একজন পরিপূর্ন সফল মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে নিয়মিত খেলাধূলা চর্চার কোন বিকল্প নেই। একজন সফল ক্রীড়াবিদ দেশ ও জাতির সম্পদ। কিন্তু বিজ্ঞানের নতুন নতুন প্রযুক্তিকে আমরা ভালো দিকে চর্চা না করে মন্দ ভাবে চর্চা করার জন্য বর্তমান প্রজন্ম আস্তে আস্তে খেলাধূলা থেকে অনেক দূরে সরে যাচ্ছে। এই জাতীয় সমস্যা থেকে বর্তমান ও আগামী প্রজন্মকে সুস্থ্য ধারার সংস্কৃতির দিকে ফিরিয়ে আনতে প্রতিটি পরিবারের অভিভাবকদের অবশ্যই গুরুত্বপূর্ন ভ’মিকা রাখতে হবে তা না হলে আগামীতে খেলাধূলা বিহীন একটি অসুস্থ্য প্রজন্মকে কাঁধে করে বহন করতে হবে। দ্রæত অভিভাবকদের সচেতন হয়ে এমন জরুরী বিষয়ে সঠিক নেতৃত্বদানের আহŸান জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত ১১ মে (বুধবার) ঢাকার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে উপস্থিত থেকে ২০১৩ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত আট বছরের জন্য দেশের ৮৫ জন গুণী ক্রীড়া ব্যক্তিত্বকে এ পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেকে একটি ১৮ ক্যারেট মানের ২৫ গ্রাম ওজনের স্বর্ণপদক, এক লাখ টাকার চেক এবং একটি সম্মাননাপত্র প্রদান করা হয়।