সন্ধ্যা ৭:৫৭, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







ঈদগাঁওতে জনশুমারি ও গৃহগণনা শুরু হচ্ছে ১৫ জুন

এম আবু হেনা সাগর, ঈদগাঁও: সারাদেশের ন্যায় ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনামুখর পরি বেশে কক্সবাজারের নবঘোষিত ঈদগাঁও উপজেলার ৫ ইউনিয়নে জনশুমারী ও গৃহগণনা ২০২২ শুরু হচ্ছে ১৫ জুন। সপ্তাহব্যাপী এই জনশুমারী শেষ হবে ২১ জুন।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো জনশুমারী ও গৃহগণনা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবে। শুমারি শুরুর আগে ১৪ জুন রাত ১২টাকে ‘শুমারি রেফারেন্স পয়েন্ট/সময়’ হিসেবে ধার্য করা হয়েছে।

জানা যায়, এবারই প্রথম ডিজিটাল পদ্ধতিতে জন শুমারি কার্যক্রম পরিচালিত হতে যাচ্ছে। একটি ওয়েব ভিত্তিক ইনটিগ্রেটেড সেনসাস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (আইসিএমএস) প্রস্তুতসহ জিওগ্রাফিক্যাল ইনফরমেশন সিস্টেমে (জিআইএস) গণনা এলাকার কন্ট্রোল ম্যাপ প্রস্তুত করা হয়েছে।

জনশুমারি তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রমে শুমারি কর্মী হিসেবে সারাদেশে ন্যায় বৃহত্তর ঈদগাঁওতে সুপার ভাইজার ও অধিক গননাকারী এ প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত থাকবেন।

জনশুমারী এবং গৃহগননা উপলক্ষে কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলার পাঁচ ইউনিয়নে সুপারভাইজার ও গননাকারীদের প্রশিক্ষনও সম্পন্ন হয়। সে সাথে গননা কারীদের হাতে ডিজিটাল ট্যাব,টি-শার্টসহ প্রয়োজনীয় উপকরন সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। এদিকে ঈদগাঁও -জালালাবাদে প্রায় দেড় শতাধিকজনের মাঝে এই প্রশিক্ষন দেন- উপসহকারী কৃষি অফিসার জিকু দাশ, আইটি সুপারভাইজার মহিউদ্দিন। তারা হাতে কলমে ও পর্দার মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহের কাজে যাবতীয় তথ্যদি বুঝিয়ে এবং ৩৫টি তথ্যের বিশদ আলোচনা করেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা শুমারী সমন্বয়ক মো: মিজবাহ হোসেন মুন্না প্রতিবেদককে জানান, কক্সবাজার সদর ও ঈদগাঁওতে জনশুমারী-গৃহগননাকাজে নিয়োজিত গনণাকারী রয়েছেন- ১১শত ৯১জন, সুপারভাইজার রয়েছেন ২শত ১৩ জন। গনণাকাজের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন বলেও জানায়।

উল্লেখ্য যে, এটি ৬ষ্ঠ জনশুমারী-গৃহগনণা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।