রাত ৮:৪৩, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







নাশকতার আশঙ্কা, সবাই সতর্ক থাকুন: প্রধানমন্ত্রী

স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের (এসএসএফ) প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, পঁচাত্তরের পর বার বার ক্যু হয় সেনাবাহিনীতে। এসএসএফকে আমরা যতোটা পেরেছি, শক্তিশালী করেছি। আমরা সন্ত্রাস দমন করতে পেরেছি। আমরা উন্নয়নের নতুন দ্বার উন্মোচন করেছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন করেছি। পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র হচ্ছে। চট্টগ্রামে টানেল হচ্ছে। এক্সপ্রেসওয়ে হচ্ছে। আমাদের প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা বিধান করতে হবে।

তিনি বলেন, সবচেয়ে বড়ো চ্যালেঞ্জ ছিলো পদ্মা সেতু। আমরা দেশসেবা করতে এসেছি, সুতরাং কোনো অপবাদ মেনে নেবো না।

ড. ইউনূসের প্রতি ইঙ্গিত করে শেখ হাসিনা বলেন, এমডি পদটা ছাড়তে চাইলো না। আবার ব্যাংকটাও চালাতে পারছিলো না। সরকার থেকে আমরা টাকা দিয়েছি। গ্রামীণ ফোনকে আমরা বেশি সুবিধা দিয়েছি। রেলওয়ের ফাইবার অপটিক ব্যবহারের সুযোগ দিয়েছি।

সবচেয়ে বেশি সুবিধা দেওয়া সত্ত্বেও ড. ইউনূস সরকারের বিরুদ্ধে দুইটা মামলা করে। মামলায় হেরেও যায়। তিন লাখ ডলার দিয়েছিলো হিলারি ক্লিনটনের ট্রাস্টে। একটা ব্যাংকের এমডি এতো টাকা কোথায় পেলো, কেউ প্রশ্ন করে না।

ইঊনূস তার ব্যাংকের পদের জন্য হিলারিকে বলে। হিলারি আমাকে ফোন করেন। আমি তাকে আইনের কথা জানিয়েছি।

ওয়ার্ল্ড ব্যাংক কানাডার আদালতে মামলা করে। মামলায় হেরেও যায়। ইঊনূসের কথায় বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করে দেয়। তখন আমরা সিদ্ধান্ত নেই, নিজেদের টাকায় পদ্মা সেতু করবো।
তিনি বলেন, সামনে সেতুর উদ্বোধন। আমরা যাতে ঠিকমতো উদ্বোধন করতে না পারি, বিভিন্ন চক্রান্ত চলছে।

রেলওয়েতে আগুন ও সীতাকুণ্ডের আগুনের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি একটা ভিডিও দেখেছি। রেলের চাকার নিচ থেকে আগুন ধরছে। সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার নিরাপত্তার দিকে নজর দিতে হবে। – বিটিভি