সকাল ৭:৪০, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







থানচিতে গ্রামে গ্রামে ম্যালেরিয়া প্রকোপ

অসীম রায়, বান্দরবান: এছাড়াও সাধারন জ্বর, কাশি, বুক ব্যাথা, পেট ব্যাথাসহ নানান রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

উপজেলার ৪ টি ইউনিয়নের বর্ষা মৌসুম শুরু থেকে ঘরে ঘরে দুই একজন করে জ্বরসহ ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে। পাহাড়ি অঞ্চলে পাঁয়ে হাঁটার পথে দুর্গমতার কারনে উপজেলা সদরের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স’র চিকিৎসা নিতে না আসলেও দুর্গম এলাকার হাট বাজারে ফার্মেন্সি দোকান গুলিতে জ্বরের ঔষধ ক্রয় ও খেয়ে যাচ্ছে অনেককে ।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও এনজিও সংস্থা ব্র্যাক গত দুই সপ্তাহ যাবৎ ম্যালেরিয়া পরীক্ষা যন্ত্র ডিভাইজ কীট, অপ্রতুল, ম্যালেরিয়ার ঔষধ অপ্রতুল থাকায় এ রোগের সংক্রামন দেখা যাচ্ছে বলে ধারনা করছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স’র সূত্রে জানা যায়, দুর্গম গ্রাম গুলিতে চলতি বর্ষা মৌসুমে ম্যালেরিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। তার সাথে ডায়রিয়া ও হচ্ছে। গ্রামে গ্রামে ১০/১২ জন করে ম্যালেরিয়া ও জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছে। গত ৫ দিনে শিশুসহ ১৭ জন স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি হয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্য বিভাগ। দুর্গমতা অঞ্চল থেকে অনেকে হাসপাতালে আসছেন না চিকিৎসা নিতে।

১৫ ই জুন দুপুরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স’র মিডওয়াইফ নিলুফা ইয়াজমিন জানান, গত ৫ থেকে ৯ জুন পর্যন্ত ১৭ জন ম্যালেরিয়া রোগী ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে ৭ জন বাড়ীতে চলে গেছে, আক্রান্তদের মধ্যে প্রায় শিশু ও কিশোর রয়েছে।

তিনি বলেন, পাহাড়ে এ সময় অর্থাৎ বর্ষা মৌসুমে মশার উপদ্রব বেশী দেখা দেয়। ঘরের আঙ্গিনায় পানি জমা থাকে, ময়লা অবর্জনা জমা থাকলে মশার উপদ্রব বেশী দেখা দেয়। সব সময় মশারী ব্যবহার করার পরামর্শ দিই।

সরেজমিনে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স’র চিকিৎসাধীন ম্যালেরিয়া আক্রান্ত রেমাক্রী ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডে শুভাষ চন্দ্র পাড়া নিবাসী প্রদীপ ত্রিপুরা জানান, আমাদের এলাকার ঘরে ঘরে জ্বরে আক্রান্ত আছে। জ্বরে পরীক্ষা করার যন্ত্র নেই, স্বাস্থ্য কর্মীও নেই, আগেতো এনজিও কর্মী ছিল এখন তাও নেই, অনেকে স্থানীয় হাট বাজার থেকে জ্বরের ঔষধ এনে সেবন করে সুস্থ হয়ে যায়। আমি ও অনেক ঔষধ খেয়েছি কিন্তু ভালো না হওয়া আমার ছেলেকে নিয়ে গতকাল থানচি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স’র এসেছি। চিকিৎসক নার্সরা পরীক্ষা করে দেখি ম্যালেরিয়া জ্বর।