সকাল ১০:৪৭, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







কুমিল্লায় উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ শেষে চলছে গণনা

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট গ্রহন শেষে চলছে গণনা। জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত। আর কোনো কোনো কেন্দ্রে একই কক্ষে দুটি বুথ রাখা এবং ইভিএমে ধীরগতির অভিযোগ স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু ও নিজামউদ্দিন কায়সারের।

অন্যদিকে সুষ্ঠু নির্বাচনের আশা প্রকাশ করে, ভোটারদের কেন্দ্রে আসার আহ্বান ছিলো রির্টানিং অফিসারের।

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণ শেষে এখন গণনা চলছে।

কুমিল্লা সিটির পাশাপাশি পাঁচটি পৌরসভা, চারটি উপজেলা পরিষদ এবং দেড় শতাধিক ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল থেকেই ভোটাররা কেন্দ্রে আসতে শুরু করেন। তবে কুমিল্লার বিভিন্ন কেন্দ্রের তথ্য থেকে জানা যায়, পুরুষের চাইতে নারী ভোটারের উপস্থিতি ছিল বেশি। নির্বাচন চলাকালে কোথাও বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি লক্ষ্য করা যায়নি।

সারাদেশের দৃষ্টি এখন কুসিক নির্বাচনের দিকে। কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশনের অধীনে প্রথম নির্বাচন এটি। তাই নির্বাচনে কোনো ধরনের ফাঁক রাখতে চাচ্ছে না কমিশন। যে কোনো নির্বাচনের তুলনায় বেশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

ইভিএম সহ ভোটের সরঞ্জাম কুমিল্লা জেলা স্কুলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করছেন নির্বাচনী কর্মকর্তারা। আর জেলা শিল্পকলা একাডেমী থেকে ভোটের ফলাফল প্রকাশ করছেন রির্টানিং অফিসার মোহাম্মদ শাহেদুননবী চৌধুরী।

এর আগে উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট দেন কুমিল্লা সিটির বাসিন্দারা। সকাল থেকেই কেন্দ্রে কেন্দ্রে ছিলো ভোটারদের দীর্ঘ লাইন।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুল ভোট কেন্দ্রে ভোট দেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত। শতভাগ জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি তিনি। একই কেন্দ্রে ভোট দেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী নিজামউদ্দিন কায়সার। কেন্দ্রে বুথ সংখ্যা কমানো এবং ধীরগতিতে ভোটের অভিযোগ করেন তিনি।

নবাব হোচ্ছাম হায়দার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ভোট দেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু। তিনি বলেন, ইভিএম এ ভোট ধীরগতি। তবে ভোটের পরিবেশ নিয়ে সন্তুষ্টি জানান।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শাহেদুন্নবী চৌধুরী বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে সব কিছুই করা হয়েছে। কুমিল্লা জেলা ও পুলিশ প্রশাসন যথেষ্ট তৎপর। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোনো শঙ্কার কারণ নেই।

অন্যদিকে আলোচিত সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার বলেন, প্রার্থী ও সমর্থকরা উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিয়েছে। সারা কুমিল্লায় উৎসবের আমেজ চলছে। ভোটের মাঠে সুষ্ঠু এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিরাজ করছে। তবে কিছু অতি উৎসাহী কর্মকর্তার কারণে ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ যাতে বিঘ্নিত না হয়- সে ব্যাপারে প্রশাসনকে সতর্ক থাকার জন্য আহ্বান জানান।

এবার নির্বাচনে মোট ভোটার দুই লাখ ২৯ হাজার ৯২০ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার এক লাখ ১৭ হাজার ৯২, পুরুষ ভোটার এক লাখ ১২ হাজার ৮২৬ জন। আর দুজন তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার। মোট ১০৫টি কেন্দ্রের ৬৪০টি কক্ষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। মেয়র পদে ৫ জন ছাড়াও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১১১ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৩৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।