রাত ১০:৪৮, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







বিশ্বকে আরেকটি শীতল যুদ্ধে পড়তে দেয়া উচিত হবে না: জোকো

ইন্দোনেশিয়ার বালিতে শুরু হওয়া জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে আবারও চলমান যুদ্ধ বন্ধের আহ্বান জানালেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো।

মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) বালিতে সম্মেলনের উদ্বোধনকালে তিনি এই আহবান জানান। খবর বার্তা সংস্থা এএফপি’র।

সম্মেলনে উইদোদো বলেন, দায়িত্বশীল হওয়ার অর্থ কোনো এক পক্ষের একতরফা লাভবান হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করা নয়, এখানে দায়িত্বশীল হওয়ার অর্থ আমাদেরকে অবশ্যই এ যুদ্ধের অবসান ঘটাতে হবে। যুদ্ধের অবসান ঘটাতে না পারলে, এতে বিশ্বের পক্ষে এগিয়ে যাওয়া কঠিন হয়ে পড়বে।

রাশিয়ার আট মাসের আগ্রাসন এবং পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের হুমকির নিন্দা জানানো যায় জি২০ সম্মেলনে এমন একটি যৌথ ঘোষণার প্রতি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

রাশিয়া আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে একেবারে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে তার প্রমাণ হিসেবে মার্কিন ও ইউরোপীয় কর্মকর্তারা বালিতে এ সম্মেলনের আয়োজন করেন। কিন্তু জাকার্তা একটি নিরপেক্ষ পররাষ্ট্র নীতি অনুসরণ করে এবং বৈঠকের আগে মস্কোকে আমন্ত্রণ না জানানোর পশ্চিমা চাপকে প্রত্যাখান করে।

রাশিয়ার নাম উল্লেখ না করে উইদোদো বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশগুলোর মধ্যে আরেকটি শীতল যুদ্ধের সুযোগ না দিতে সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, আমাদের বিশ্বকে বিভিন্ন ভাগে বিভক্ত করা উচিত হবে না। আমাদের বিশ্বকে আরেকটি শীতল যুদ্ধে পড়তে দেয়া অবশ্যই উচিত না।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এ সম্মেলনে অংশগ্রহণ না করায় দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ তাদের দেশের প্রতিনিধত্ব করছেন।

রাশিয়ার ইউক্রেন আগ্রাসনের ফলে ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি লাখো মানুষকে দারিদ্রের দিকে এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশকে মন্দার দিকে ঠেলে দেয়ার পর জি২০ নেতারা বালিতে একত্রিত হয়েছেন।

উইদোদো বলেন, বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির দেশগুলোর এ ব্লককে বিশ্বের গভীরতম এ সংকট মোকাবেলায় অবশ্যই সফল হতে হবে।

তিনি প্রতিনিধিদের বলেন, ‘আজ বিশ্বের নজর আমাদের দিকে। আমরা কি সাফল্য পাবো? নাকি আরও একটি ব্যর্থতা যোগ করবো?’

তিনি আরও বলেন, আমার পক্ষ থেকে আমি বলতে পারি যে জি২০ অবশ্যই সফল হবে। এটি অবশ্যই ব্যর্থ হবে না।

এর আগে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বিশ্বের ধনী দেশগুলোর নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, তার প্রস্তাবিত শান্তি পরিকল্পনার অধীনে তার দেশে যুদ্ধ বন্ধ করার এখনই সময়। জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

উল্লেখ্য, জি-২০ বা গ্রুপ অব টোয়েনটি হলো বিশ্বের ২০টি দেশের অর্থমন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নরের সমন্বয়ে গঠিত একটি জোট বা গ্রুপ। ১৯৯৯ সালে আন্তর্জাতিক আর্থিক স্থিতিশীলতা উন্নয়ন সম্পর্কিত নীতি আলোচনার লক্ষ্য নিয়ে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়।

এই গ্রুপের ২০ সদস্য হলো, আর্জেন্টিনা, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, কানাডা, চীন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, ফ্রান্স, জার্মানি, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ইতালি, জাপান, মেক্সিকো, রাশিয়া, সৌদি আরব, দক্ষিণ আফ্রিকা, দক্ষিণ কোরিয়া, তুরস্ক, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। আর স্পেন এই জোটের স্থায়ী আমন্ত্রিত অতিথি।