রাত ১০:২৮, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







সক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ায় ঘুরে দাঁড়িয়েছে ফায়ার সার্ভিস: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সক্ষমতা বাড়ানোর কারণে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ঘুরে দাঁড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর মিরপুরে ফায়ার সার্ভিস ট্রেনিং কমপ্লেক্সের প্যারেড গ্রাউন্ডে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ-২০২২-এর অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

‘দুর্ঘটনা-দুর্যোগ হ্রাস করি, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ি’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে প্রতিবছরের মতো এবারও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ শুরু হয়।

একসময় ‘দমকল’বলে অবহেলা করলেও বর্তমানে সবাই ফায়ার সার্ভিসকে দুঃসময়ের বন্ধু মনে করেন বলেও জানান মন্ত্রী।

তিনি বলেন, সক্ষমতা বাড়ানোর কারণে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ঘুরে দাঁড়িয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় প্রতিটি উপজেলায় একটি করে ফায়ার স্টেশন নির্মাণের কাজ চলছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকারে আসার সময় দেশে ফায়ার স্টেশনের সংখ্যা ছিল মাত্র ২০৪টি। বর্তমানে দেশে চালু ফায়ার স্টেশন হলো ৪৯১টি। এই সরকারের সময়ে দেশে নতুন ২৮৭টি ফায়ার স্টেশন চালু করা হয়েছে। আগামী অর্থবছরের মধ্যে আরও ৫২টি নতুন ফায়ার স্টেশন চালু করা হবে। তখন ফায়ার স্টেশনের মোট সংখ্যা দাঁড়াবে ৫৪৩টি।

তিনি বলেন, ২০০৯ সালে এই প্রতিষ্ঠানের মোট জনবল ছিল মাত্র ছয় হাজার ১৭৫ জন। বর্তমানে এই জনবল হয়েছে ১৪ হাজার ৪৪৩ জন। প্রকল্পের কাজ শেষ হলে জনবলের সংখ্যা হবে প্রায় ১৬ হাজার।

আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ নিশ্চিত করতে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ফায়ার একাডেমি’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এ একাডেমি প্রতিষ্ঠিত হলে এখানে একসঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের এক হাজার সদস্যকে উন্নত প্রশিক্ষণ দেয়া যাবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানান, বহুতল ভবনে অগ্নিনির্বাপণ ও উদ্ধার কাজের জন্য ২৮টি উঁচু মইয়ের গাড়ি আনা হয়েছে। এছাড়া উঁচুতে আগুন নেভানোর জন্য ফায়ার সার্ভিসের যান্ত্রিক বহরে যোগ করা হয়েছে ৬৮ মিটারের লেডার সংবলিত গাড়ি। ফায়ার সার্ভিসের অ্যাম্বুলেন্সের সংখ্যা ৬৩টি থেকে ১৯০টিতে উন্নীত করা হয়েছে।

বক্তব্যের শুরুতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী স্মরণ করেন চলতি বছরের ৪ জুন সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোর ভয়াবহ অগ্নিদুর্ঘটনায় নির্মম মৃত্যুর শিকার ফায়ার সার্ভিসের ১৩ জন ‘অগ্নি বীর’সহ বিভিন্ন সময় অগ্নিনির্বাপণ ও উদ্ধারকাজে অংশ নেয়া ৩০ জন ফায়ার ফাইটারকে, যারা কর্তব্য পালনকালে জীবন দিয়েছেন।