সকাল ১১:১৮, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







হাসপাতালে মৃত্যু ঘোষণার পর পালালো স্বামী!

শাহ্ আলম ভূঁইয়া, ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে সাদিয়া আফরোজা (১৯) নামের এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে (১৬ জুন) ঈশ্বরগঞ্জ পৌর এলাকার দত্তপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী খালিদ হাসান টিটু (২৩) পলাতক রয়েছে। টিটু দত্তপাড়া এলাকার মো. সুজন মিয়ার ছেলে।

জানা যায়,, বিগত প্রায় ৮ মাস পূর্বে পৌর এলাকার দত্তপাড়া গ্রামের মো. আব্দুল্লাহ আল মামুনের কন্যার সাথে পরিবারের অমতে বিয়ে হয় একই এলাকার মো . সুজন মিয়ার ছেলে খালিদ হাসান টিটুর। টিটু ওয়ালটনের একটি শো-রুমে কাজ করেন। এদিকে, নিহত সাদিয়া আফরোজা ঈশ্বরগঞ্জ সরকারি কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

এ অবস্থায় ঘটনারদিন দুপুরে নিহতের স্বামী টিটু বাহির থেকে এসে দেখে ঘরের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ। পরে অনেকক্ষণ ডাকাডাকি করে সাড়া না পেয়ে অন্য দরজা দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করে দেখতে পান গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় সিলিং ফ্যানে ঝুঁলছে ওই গৃহবধূর নিথর দেহ।

পরে তাকে উদ্ধার করে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরই হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায় নিহতের স্বামী খালিদ হাসান টিটু। এ ঘটনাটিকে নিহতের পিতা মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন হত্যাকাণ্ড বলে দাবি করছেন।

তিনি বলেন, আমার মেয়েটিকে পরিকল্পিতভাবে তার স্বামী হত্যা করেছে। আমার মেয়ের খুনির ফাঁসি চাই।

নিহত গৃহবধূর শাশুড়ি হোসনে আরা বলেন, শারীরিক অসুস্থতায় গতকাল থেকে আমি ঈশ্বরগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি। হাসপাতাল থেকে খবর পেয়েছি আমার পুত্রবধূ আত্মহত্যা করেছে। আমি তাকে মেয়ের মতো আদর করেছি। জানিনা কি কারণে সে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে।

এ বিষয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল কাদের মিয়া বলেন, ‘ খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার. করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় অন্যান্য আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে’।