দুপুর ১:৩৫, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







চিত্রাভিনেত্রী শিমুকে হত্যার দায় স্বীকার করলেন স্বামী

কেন তাকে হত্যা করা হয়েছে বা কিভাবে হত্যা করা হয়েছে এ বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। রাইমা ইসলাম ওরফে শিমুকে হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সোমবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। রাতভর জেরার পরে দায় স্বীকার করে নোবেল।

হত্যাকাণ্ডে সহায়তার অভিযোগে স্বামীর বন্ধু ফরহাদ হোসেনকেও গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত আলামত ও বস্তাবন্দি করে লাশ ফেলে দেয়ার ঘটনায় ব্যবহৃত প্রাইভেটকার জব্দ করা হয়েছে।

অভিনেত্রী ফেসবুক স্ট্যাসে লিখেছেন, রাইমা ইসলাম শিমু আমাদের চলচ্চিত্রে বহু ছবির নায়িকা। তাকে দুর্বৃত্তরা হত্যা করে কেরানী গঞ্জ,আলীপুর গ্রামের ব্রীজের পাশে ফেলে রেখেছিলো।(ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। তার আত্মার শান্তি কামনা করছি আমিন। চলচ্চিত্রশিল্পের অনেকেই শিমুর হত্যাকাণ্ডে শোকাহত।

শিমু ছিলেন রাজধানীর গ্রিনরোডের বাসিন্দা। রোববার (১৬ জানুয়ারি) অভিনেত্রী শিমুর অভিভাবকরা নিখোঁজ সংক্রান্তে একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন কলাবাগান থানায় । পরে জিডিসূত্রে অজ্ঞাত নামা কয়েকজনকে আসামি করে একটি মামলা করা হয়।

পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় সোমবার কেরানীগঞ্জ থেকে বস্তাবন্দি একটি লাশ উদ্ধার করে। শিমুর পরিবারের পক্ষ থেকে পরে লাশটিকে শনাক্ত করা হয়। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মিডফোর্ড হাসপাতালে আছে। – চ্যানেলআই অনলাইন