ভোর ৫:১১, ২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







সাকিবদের দরকার ৭ উইকেট, উইন্ডিজের ৩৫ রান

নতুন বলে ক‍্যারিবীয়দের যেন একাই কাঁপিয়ে দিলেন সৈয়দ খালেদ আহমেদ। তবে তার সঙ্গে এগিয়ে আসতে পারলেন না অ‍ন‍্যরা। সুযোগে প্রতিরোধ গড়লেন জন ক‍্যাম্পবেল ও জার্মেইন ব্ল‍্যাকউড। এই দুজনের ব‍্যাটে জয়ের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেল স্বাগতিকরা।

শনিবার অ‍্যান্টিগা টেস্টের তৃতীয় দিনের খেলা শেষে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৪৯ রান। চারটি চারে ৪২ বলে ২৮ রানে অপরাজিত ওপেনার ক‍্যাম্পবেল। আর দুই চারে ৩৬ বলে ব্ল‍্যাকউডের রান ১৭।

চতুর্থ ইনিংসে ৪০ রানের জুটি গড়েছেন এই দুই ব‍্যাটার। অনেক চেষ্টা করেও শনিবার শেষ বেলায় তাদের বিচ্ছিন্ন করতে পারেনি সাকিবরা। যদিও জয়ের জন‍্য এখনও ৩৫ রান দরকার ওয়েস্ট ইন্ডিজের। আর বাংলাদেশের চাই ৭ উইকেট।

পুঁজি বলতে কেবলই ৮৪টি রান। তবুও দারুণ লড়াই করছে বাংলাদেশ। যার পুরোটাই কিন্তু খালেদের হাত ধরে। ইনিংসের দ্বিতীয় ও নিজের প্রথম ওভারের প্রথম বলেই ক্রেইগ ব্র‍্যাথওয়েটকে বিদায় করেন এই পেসার। লেগ স্টাম্পের বাইরের বলে খোঁচা মেরে নুরুল হাসান সোহানের গ্লাভসে ধরা পড়েন ক‍্যারিবীয় অধিনায়ক (১)।

চার বল পরে কট বিহাইন্ড হয়ে ফেরেন রেমন রেইফার (২)। খালেদের অফ স্টাম্পের বাইরের বল ছেড়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন এই টপ অর্ডার ব‍্যাটার। তবে বাড়তি বাউন্স করা বলটি তার গ্লাভসে ছোবল দিয়ে চলে যায় কিপারের কাছে।

এক ওভারে জোড়া উইকেট হারানোর ধাক্কা সামাল দেয়ার আগেই এনক্রুমা বোনারকে হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। চমৎকার এক ডেলিভারিতে বোনারের স্ট্যাম্প এলোমেলো করে দেন খালেদ।

যার ফলে মাত্র ৯ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসে উইন্ডিজ। তবে এই সুবিধাটা কাজে লাগাতে পারেনি বাংলাদেশ। সফরকারীদের সব চেষ্টা ব‍্যর্থ করে দিয়ে প্রতিরোধ গড়েন ক‍্যাম্পবেল ও ব্ল‍্যাকউড। কিছু আলগা বল পেয়ে মারেন বাউন্ডারিও। চতুর্থ দিনে তাদের ব‍্যাটে জয় যেন স্বাগতিকদের দৃষ্টি সীমাতেই।

অ‍্যান্টিগা টেস্টে এক পর্যায়ে ইনিংস ব‍্যবধানে জয়েরই আশা জাগিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। স‍্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে ২ উইকেটে ৫০ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করে বাংলাদেশ। প্রথম সেশনে চার চারটি উইকেট তুলে নেয় স্বাগতিকরা।

লাঞ্চ বিরতিতে যাওয়ার সময়ও ৪৭ রানে পিছিয়ে ছিল বাংলাদেশ। তবে সাকিব ও সোহানের সপ্তম উইকেটে রেকর্ড গড়া ১২৩ রানের জুটিই লিড এনে দেয় দলকে। তবে দ্বিতীয় নতুন বল নিয়েই এই দুই ব‍্যাটারকে ফিরিয়ে লক্ষ‍্যটা একশর নিচেই রাখেন ক্যারিবীয় পেসার কেমার রোচ।

ফেরার আগে সাকিব ৯৯ বলে ৬৩ এবং সোহান ১৪৭ বলে ৬৪ রানের ইনিংস খেলেন। এছাড়া তৃতীয় সর্বোচ্চ ৪২ রান করেন জয়। যার সমন্বয়ে ২৪৫ রানেই থামে বাংলাদেশ। ৫৩ রানে পাঁচটি উইকেট নেন রোচ।

যদিও বাংলাদেশের নেয়া ওই ৮৩ রানে লিডও অনেক কঠিন করে তুলেছিলেন খালেদ আহমেদ। তবে দিন শেষে জয়ের দুয়ারেই দাঁড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।