দুপুর ২:১৫, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







যশোরে চুরির দুই মাস উনিশ দিন পর চোরাই মালামালসহ গ্রেফতার ২

যশোর প্রতিনিধি সদর উপজেলার রামনগর পুকুরকূল গ্রামের এক বাড়িতে চুরির দুই মাস উনিশ দিন পর পুলিশ চুরি যাওয়া তিনটি মোবাইল ফোন,একটি পেনড্রাইভ,স্বর্ণের চেইন,তিনটি ছোট বড় স্বর্ণের আংটি উদ্ধার করেছে। এ সময় চোরাইমাল হেফাজতে রাখার অভিযোগে দুই চোরকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে, নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলার পুরুলিয়া গ্রামের আতিয়ার কাজীর ছেলে বিপ্লব কাজী ও যশোর শহরের পূর্ব বারান্দীপাড়া ঢাকা রোডের মৃত আব্দুল ওয়ালী বিশ্বাসের ছেলে খালেদ মাহমুদ রাতুল ওরফে বড় মনি। এ সময় নড়াইল জেলার সদর উপজেলার ভুমুরদিয়া গ্রামের সুমনসহ অজ্ঞাতনামা ১/২জন ধরা ছোয়ার বাইরে রয়েছে।

বুধবার রাতে সদর উপজেলার রামনগর পুকুরকূল গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে হাসান তারিক বাদি হয়ে কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত মামলায় বলেন,গত বছরের ৩০ অক্টোবর রাতে খাওয়া দাওয়া শেষ করে রাত ১০ টায় পরিবার নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। পরের দিন ৩১ অক্টোবর সকাল ৬ টায় ঘুম থেকে উঠে দেখে ঘরের টেবিলের উপরে চার্জে থাকা বাদি ও তার ছোট ভাই হাসান আরিফ ও তাদের পিতা আব্দুল জলিলের মোট ৩টি মোবাইল ফোন যার মূল্য ২৮ হাজার ৯শ’ ৯০ টাকা। ৮শ’ টাকা মূল্যের পেনড্রাইভ,দু’টি মানিব্যাগে নগদ ৭,৬০০ টাকা, পার্সব্যাগে ১টি স্বর্ণের চেইন ৬আনা মূল্য ২০ হাজার টাকাসহ ৬৬,৩৯০ টাকার মালামাল চুরি হয়ে গেছে। ১ নভেম্বর কোতয়ালি মডেল থানায় চোরাই বর্ননা দিয়ে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগের এক কপি যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) অফিসে প্রেরণ করেন। ডিবি পুলিশ মোবাইল ফোনে তথ্য মোতাবেক বুধবার ১৯ জানুয়ারী বিকেল ৩ টায় যশোর শহরের পূর্ব বারান্দীপাড়া বটতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী বিপ্লব কাজীও খালেদ মাহমুদ রাতুল ওরফে বড় মনি’র দখল হতে ৩টি মোবাইল ফোন পেনড্রাইভ উদ্ধার করে।

গ্রেফতারকৃতরা পুলিশের কাছে স্বীকার করে ওই এলাকার আরো ২/৩টি বাড়িতে চুরি করে। চুরি হওয়া বাড়িগুলিতে আসামীদের নিয়ে গেলে তারা চুরির কথা স্বীকার করেন। স্বর্ণালংকার চুরি করে কোথায় বিক্রি করে তা স্বীকার করে। পরে পুলিশ আসামীদের নিয়ে উক্ত দোকানগুলি হতে স্বর্ণালংকার উদ্ধার করে। গ্রেফতারকৃত বিভিন্ন বাসা বাড়িতে প্রায় চুরির কথা স্বীকার করে।

গ্রেফতারকৃতদের বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারী দুপুরে আদালতে সোপর্দ করে।