দুপুর ১২:৫৮, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







সুনামগঞ্জে চলতি নদীতে অবৈধ বালি-পাথর বাণিজ্য: ৩ জনের কারাদন্ড

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া- সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের সীমান্ত নদী চলতি। প্রাকৃতিক খনিজ সম্পদে ভরপুর এই নদী। তাই এলাকার স্থানীয় প্রভাবশালীরা তাদের দখলে নিয়ে প্রতিদিন অবৈধ ভাবে লক্ষলক্ষ টাকার বালি ও পাথর বিক্রি করছে।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাঝে মধ্যে অভিযান পরিচালনা করা হয়। জব্দ করা হয় প্রভাবশালীদের মজুত করে রাখা বালি ও পাথর। আটক করা হয় নৌকা। তারপরও থেমে নেই তারা। কারণ অবৈধ ভাবে যারা বালি ও পাথর উত্তোলন করছে তারা সংঘবদ্ধ। এজন্য ওরা আইন অমান্য করে দেধারসে তাদের অবৈধ কর্মকান্ড দীর্ঘদিন যাবত চালিয়ে যাচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে- গতকাল বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারী) বিকেলে থেকে সন্ধ্যায় পর্যন্ত চলতি নদীতে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করেন সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাদিয়া সুলতানা। তিনি ওই নদীর তীরে অবস্থিত অলির বাজার সংলগ্ন স্থান থেকে অবৈধ ভাবে বালি ও পাথর উত্তোলনের অপরাধে মোট ৫জন আটক করেন।

পরে তাদের মধ্যে সুনামগঞ্জ পৌরশহরের তেঘরিয়া এলাকার জুনেদ আহমদ (৪২) ও সদরগড় গ্রামের সাত্তার মিয়া (৪০) কে ২লক্ষ টাকা অর্থদন্ড করাসহ ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার কচুয়া গ্রামের
আতাউর রহমান মস্তোফা (৩৫) ও সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সদরগড় গ্রামের আকবর আলী (৩৬), একই গ্রামের নুরুজ্জামান (২৯) কে ১০দিনের করে কারাদন্ড প্রদান করেন।

আজ শুক্রবার (২১ জানুয়ারী) দুপুরে কারাদন্ড প্রাপ্ত ৩জনকে কারাঘারে পাঠানো হয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়- চলতি নদীর ধোপাজান বালুমহালটি ৩বছর যাবত ইজারা না হলেও এলাকার প্রভাবশালীরা ব্যক্তিরা সিন্ডিকেডের মাধ্যমে প্রতিদিন অবৈধ ভাবে লক্ষলক্ষ টাকা বালি ও পাথর বিক্রি করছে। এছাড়াও চলতি নদীর সদরগড় হতে ডলুরা সীমান্ত পর্যন্ত পুরো এলাকা জুড়ে খনন যন্ত্র ও বোমা মেশিন দিয়ে অবৈধ ভাবে বালি ও পাথর উত্তোলন করে মজুত করে রাখাসহ বিক্রি করা হচ্ছে। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে কার্যকর পদক্ষেপ কখনোই নেওয়া হয়না।

এজন্য অবৈধ বালি ও পাথর খেঁকোরা কোন প্রকার বাঁধা ছাড়াই তাদের এই অবৈধ কর্মকান্ড অবাধে চালিয়ে যাচ্ছে। আর ফসলী জমি, গাছপালা ও বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার পরও এলাকার নিরীহ অসহায় মানুষ তাদের বিরুদ্ধে কোন প্রতিবাদ করতে পারছেনা। তবে চলতি নদীর অবৈধ বালি ও পাথর উত্তোলন বন্ধ করাসহ এসব অন্যায় কাজের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানিয়ে গত রবিবার (১৬ জানুয়ারী) দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়সহ আরো বিভিন্ন দফতরে স্মারকলিপি দিয়েছে বৈধ বালি ও পাথর ব্যবসায়ীরা।

এঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাদিয়া সুলতানা সাংবাদিকদের বলেন- বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ অনুসারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। এই অবৈধ কর্মকান্ড বন্ধ করার জন্য আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।