দুপুর ১:১৪, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







মিরাজ ভেল্কির পরও হারল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স

শুরু হয়ে গেল বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) অষ্টম আসর। শুক্রবার দুপুরে উদ্বোধনী ম্যাচে হাওয়েলের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ের পর অধিনায়ক মেহেদী মিরাজের স্পিন ভেল্কির পরও ফরচুন বরিশালের কাছে হেরে যায় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। সৈকত আলী ও জিয়াউরের ব্যাটে চড়েই চট্টগ্রামের দেয়া ১২৬ রানের ছোট লক্ষ্যে পৌঁছে যায় সাকিবের দল।

টস জয়ী ফরচুন বরিশালের বোলারদের তোপের মুখে পড়ে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়া মিরাজের চট্টগ্রাম শেষ পর্যন্ত সাকিবদের সামনে দিতে পারে ১২৬ রানের লক্ষ্য। যে লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মিরাজের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে ৮ উইকেট হারালেও ৮ বল বাকি থাকতেই জয় তুলে নেয় ফরচুন বরিশাল।

এদিন বিপিএলের প্রথম ম্যাচে বরিশালের বোলারদের দাপটের পর হাওয়েল ঝড়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১২৫ রান তুলতে পারে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। দলটির পক্ষে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন বেনি অ্যালেক্সান্ডার ক্যামেরন হাওয়েল। ৩৩ বছর বয়সী ইংলিশ অলরাউণ্ডারের মাত্র ২০ বলের এই ঝোড়ো ইনিংসে ছিল সমান ৩টি করে চার ও ছক্কার মার।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৬ রান আসে আরেক ইংলিশ ব্যাটার উইলিয়াম জর্জ জ্যাকসের ব্যাট থেকে। এছাড়া নাইম ইসলাম এক ছক্কায় ১৫ এবং শামীম হোসাইন একটি চারের সাহায্যে ১৪ রান করেন।

ফরচুন বরিশালের পক্ষে ক্যারিবীয় পেসার আলজারি জোসেফ ৩২ রান দিয়ে ৩টি এবং স্পিনার নাঈম হাসান ২৫ রানের বিনিময়ে ২টি উইকেট লাভ করেন। এছাড়াও অধিনায়ক সাকিব আল হাসান, জ্যাক লিন্টট ও ডোয়াইন ব্রাভো একটি করে উইকেট লাভ করেন।

জবাব দিতে নেমে দ্বিতীয় ওভারেই নাজমুল হোসাইন শান্তকে বোল্ড করে এবারের বিপিএলে নিজের প্রথম উইকেট শিকার করেন মেহেদী মিরাজ। যাতে মাত্র ৩ রানেই উইকেট হারায় বরিশাল। এরপর ১৬ বলে ১৩ রান করা সাকিবকে এবং ইনিংসের ১৫তম ওভারে করা নিজের শেষ ওভারে টানা দুই বলে ৩৫ বলে ৩৯ রান করা সৈকত আলী ও ১৩ বলে ১৬ রান করা ইরফান শুক্কুরকে আউট করে হ্যাটট্রিকের আশা জাগানো মিরাজ শেষ পর্যন্ত মাত্র ১৬ রানের বিনিময়ে ৪টি উইকেট নিয়ে ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করে ম্যাচ জমিয়ে দেন।

কিন্তু অন্য বোলাররা সেভাবে নিজেদেরকে মেলে ধরতে না পারায়, বিশেষ করে শরিফুল ইসলাম, মুকিদুল-হাওয়েলরা উইকেট তুলে নিতে ব্যর্থ হলে ৮ বল বাকি থাকতেই হেরে যায় মিরাজের চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। যদিও ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় হন তিনি।

এদিকে, ফরচুন বরিশালের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৯ রান আসে ওপেনার সৈকত আলীর ব্যাট থেকে। তাঁর ৩৫ বলের এই ইনিংসে ছিল দুটি ছক্কার সঙ্গে একটি চারের মার। এছাড়া, সাকিব ১৩, তাওহীদ হৃদয় ১৬, ইরফান শুক্কুর ১৬ করে আউট হন। ডোয়াইন ব্রাভো ১০ বলে ১২ এবং জিয়াউর রহমান ১২ বলে ১৯ করে অপরাজিত থাকেন।