সকাল ৬:১৭, ২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







বাড়ি বাড়ি গিয়ে করোনা টিকা দিতে হবে

লিয়ন মীর: মহামারী করোনা ভাইরাসে মৃত্যু থেমে গেলেও দেশে ১৯ জুন একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯ হাজার ১৩২ জনে। এদিকে, আবারও হু হু করে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। প্রায় প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। গেলো ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমিত হয়েছেন ৮৭৩ জন। যা আগের দিন অর্থ্যাৎ রোববার(১৯ জুন) ছিলো ৫৯৬ জন। এর আগের দিন সংক্রমণের সংখ্যা ছিলো ৩০৪। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৮৭ শতাংশ উঠে গেছে।

করোনা সংক্রমণ এভাবে বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ উৎকন্ঠা সৃষ্টি হয়েছে। আলোচনা চলছে সবখানে। কেন হঠাৎ করোনা সংক্রমণ বেড়ে গেলো এনিয়েও চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ।

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ইমেরিটাস অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, টিকা কার্যক্রমে বিশ্বের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থা অনেক ভালো। বিদেশিরাও প্রশংসা করছে। তবে এখনো অনেক মানুষ ইচ্ছা করেই টিকা নেয়নি। হয়তো তাদের সচেতনতার অভাব রয়েছে। তাই এই শ্রেনীর মানুষদের টিকার আওতায় আনার জন্য বাড়ি বাড়ি গিয়ে টিকা দেওয়া যেতে পারে। তাহলে আমাদের শতভাগ সফলতা চলে আসবে। এবং সংক্রমণের এই উর্ধগতি থেকে মানুষকে রক্ষা করা যাবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম বলেন, দেশের অনেক মানুষ এখনো অনিহা, অবহেলা করে টিকা নিচ্ছেন না। আবার কেউ কেউ ঝামেলা মনে করেও টিকা নিচ্ছে না। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি যেহেতু আবারও বাড়তির দিকে তাই সরকারকেই যথাযথো পদক্ষেপ নিতে হবে। এজন্য যারা এখনো টিকা আওতায় আসেনি তাদেরকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে টিকা দিতে হবে। তাহলে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যেই থাকবে। ভয়াবহ আকার ধারণ করার সুযোগ থাকবে না।

উল্লেখ্য, দেশে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে শনাক্তের সংখ্যা পৌঁছেছে ১৯ লাখ ৫৭ হাজার ২০০ জনে। সোমবার (২০ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা বিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৯২ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৫ হাজার ৮৯৯ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৮ হাজার ৪৬টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৮ হাজার ২৮টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৮৭ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম তিনজনের শরীরে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যুর তথ্য জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।