দুপুর ২:১৭, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







ডায়াবিটিস রোগীদের জন্য তেজপাতা ভাল না খারাপ?

স্বাদ-গন্ধ বাড়াতে বাঙালির রান্না ঘরে তেজপাতার উপস্থিতি সুপ্রাচীন। বিশেষজ্ঞদের মতে, তেজপাতায় রয়েছে কপার, সেলেনিয়াম, আয়রন, জিংক, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম ও ক্যালশিয়ামের মতো বিভিন্ন উপকারী উপাদান। রয়েছে একাধিক ভিটামিনও।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ডায়াবিটিস থাকলেও তেজপাতায় ক্ষতি নয় বরং লাভের আশাই বেশি।

দেখে নিন কী কী গুণ রয়েছে অতিপরিচিত মশলা তেজপাতায়

১। ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণ: তেজপাতা সহায়তা করতে পারে ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণে। গবেষণা বলছে, দৈনিক এক থেকে তিন গ্রাম তেজ পাতা পাতে থাকলে কমতে পারে ডায়াবিটিস। বিশেষজ্ঞদের মতে, তেজপাতায় পাওয়া যায় পলিফেনল জাতীয় উপাদান। যা ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে পারে।

২। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি: তেজপাতায় ভিটামিন এ, ভিটামিন বি৬ ও ভিটামিন সি পাওয়া যায়। এই ভিটামিনগুলি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। সর্দিতে নাক বন্ধ হয়ে গেলে অনেকেই তেজপাতা দেওয়া চা পান করার পরামর্শ দেন।

৩। মন ভাল রাখতে: তেজ পাতার গন্ধে মানবদেহে আনন্দের অনুভূতি তৈরি করা হরমোনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। পাশাপাশি ইদুরের উপর করা একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গিয়েছে, প্রতি দিন ৫ মিনিট তেজপাতার ধোঁয়ায় থাকলে বৃদ্ধি পায় স্মৃতি শক্তি। তবে এই বিষয়ে আরও বিস্তারিত গবেষণার প্রয়োজন বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

৪। ক্ষত নিরাময়ে: তেজপাতার প্রদাহনাশক গুণ রয়েছে। ক্ষতস্থান নিরাময়ে এই প্রদাহনাশক গুণ কাজে আসে, বিভিন্ন প্রাণীর উপর করা পরীক্ষাতেও মিলেছে একই ফল।

৫। কিডনির স্বাস্থ্য রক্ষায়: ২০০৮ সালের একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে, তেজপাতা কিডনির পাথর প্রতিরোধে কাজে লাগতে পারে। এটি ‘ইউরিয়েজ’ নামক একটি উৎসেচকের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখে। এই উৎসেচকের পরিমাণ অতিরিক্ত বেড়ে গেলে বেড়ে যায় কিডনিতে পাথর তৈরির আশঙ্কা।

সুত্র: আনন্দবাজার