ভোর ৫:২০, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে বান্দরবানে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

অসীম রায় বান্দরবান: আজি দখিন-দুয়ার খোলা ”  বিভিন্ন সংগঠন সাংস্কৃতিক, নেতা কর্মি সহ সকল বান্দরবানে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা। বান্দরবান পার্বত্য জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন কতৃক পদ্মাসেতু উদ্ভোদন করেন।

জাতির আত্মমর্যাদার প্রতীক, বিশ্বের নিকট বাংলাদেশের সক্ষমতাকে নতুন করে জানিয়ে দেওয়ার এক অবিস্মরণীয় স্থাপত্য স্বপ্নের পদ্মা সেতু।

‘নিজের টাকায় পদ্মাসেতু’ ঘোষণা প্রদানকারী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপি আজ শনিবার প্রমত্ত পদ্মায় স্বগৌরবে প্রতিষ্ঠিত পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন করলেন।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের এই মাহেন্দ্রক্ষণে সারাদেশের কোটি মানুষের প্রতি বিশেষভাবে বান্দরবান পার্বত্য জেলায় বসবাসকারী সকল সম্প্রদায়ের মানুষের প্রতি রইলো শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

জেলা প্রশাসন, বান্দরবান পার্বত্য জেলার আয়োজনে শহরের বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে এলইডি ডিসপ্লে এর মাধ্যমে মাওয়া ও জাজিরা প্রান্তে অনুষ্ঠিত পদ্মাসেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচারের ব্যবস্থা করা হয়। এই আনন্দঘন মুহুর্তে বান্দরবানবাসীর স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ উদ্বোধন অনুষ্ঠানকে করেছে সাফল্যমন্ডিত। বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশকে নতুনভাবে পরিচিতি দিলো স্বপ্নের পদ্মা সেতু, যে স্বপ্নপূরণের মূল কান্ডারী আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।

উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চ প্রাঙ্গণ থেকে একটি বর্ণাঢ্য আনন্দ র্যালীর আয়োজন করা হয়। উক্ত র্যালীতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সরকারি কর্মচারীসহ আপামর জনগণের অংশগ্রহণ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানকে করেছে মহিমান্বিত।

আজ সন্ধ্যা ৬ টায় বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে পদ্মাসেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। উক্ত অনুষ্ঠানে সকল শ্রেনীর সকল সম্প্রদায়ের মানুষের আমন্ত্রণ রইলো।

পদ্মা সেতু জাতির অহংকার। বাঙালি মাথা নত করতে জানে না। এ জাতিকে মাথা উঁচু করে বাঁচতে শিখিয়ে গেছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। নিজের টাকায় পদ্মাসেতু নির্মাণ করে বাঙালির। আত্মমর্যাদাকে বিশ্বে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য বান্দরবানবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি রইলো শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।