রাত ১২:৫৩, ১২ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের ত্রাণ দিলো ওলামা পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখা

সামরুজ্জামান (সামুন), কুষ্টিয়া ভয়াবহ বন্যার কবলে সিলেট ও সুনামগঞ্জের লাখ লাখ মানুষ। পানিবন্দি এসব মানুষের মাঝে খাবার আর সুপেয় পানির তীব্র সংকট। এমন অবস্থায় বন্যার্ত মানুষের মাঝে খাবার ও বোতলজাত পানি, প্রয়োজনীয় ওষুধ, খাবার স্যালাইন বিতরণ করেছে ওলামা পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখা।

রবিবার (২৬ জুন) সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ ও সদর উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকার বন্যাদুর্গত ৫৬০ টি পরিবারের মাঝে চাল, ডাল, লবণ, বিশুদ্ধ পানি, শুকনো খাবার ও প্রয়োজনীয় ওষুধ, খাবার স্যালাইন বিতরণ করা হয়।

কুষ্টিয়ার মোমতাজুল উলুম মাদরাসার তত্বাবধানে ও খেদমত খলক ফাউন্ডেশনের সহায়তায় ওলামা পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার পক্ষ থেকে এসব বিতরণ করা হয়।

ত্রাণ বিতরণ কাজে মোমতাজুল উলূম মাদরাসার মোহতামিম ও ইসলামিক জোন কুষ্টিয়ার স্বত্বাধিকারী মাওলানা আরিফুজ্জামান, আশরাফুল উলুম মাদ্রাসার মুহাদ্দিস হাফেজ মাওলানা শিহাবুদ্দিন, হাফেজ শরিফুল ইসলাম, মোমতাজুল উলূম মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা আব্দুল মতিনসহ সংশ্লিষ্টরা নিয়োজিত ছিলেন।

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ইচ্ছেপুর এলাকার বানভাসী মানুষেরা জানান, কয়েক সপ্তাহ ধরে পানিবন্দী হয়ে ঘরের মধ্যে রয়েছি। খাদ্য সংকট ও বিশুদ্ধ পানি না না পেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ছে অনেকেই। তবে বড় বড় ট্রলার দেখলেই মনে হয় এইতো ত্রাণ আসলো। তাইতো ডিঙি নৌকা নিয়ে সেই ট্রলারের কাছে ছুটতে দেখা যায় অনেককে। আজকে কুষ্টিয়া থেকে আমাদের জন্য ত্রাণ সামগ্রীর সাথে প্রয়োজনীয় ওষুধ দিয়েছেন। আমাদের অনেক উপকার হলো।

মোমতাজুল উলুম মাদরাসার মোহতামীম আলহাজ্ব আরিফুজ্জামান বলেন, বৃষ্টি আর পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট বন্যায় কয়েকদিন ধরে সিলেট, সুনামগঞ্জ অঞ্চলের পানিবন্দি মানুষজন চরম খাদ্য সংকটে রয়েছে। এ অবস্থায় বানভাসি মানুষের পাশে বিভিন্ন সংগঠন দাঁড়িয়েছে। সব সামাজিক সংগঠনগুলোর এই অবস্থায় সিলেট সুনামগঞ্জ নেত্রকোনা লালমনিরহাট কুড়িগ্রাম এ অঞ্চলগুলোতে ত্রাণ সহযোগিতা করা অতি প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচির আওতায় আমরা প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় মানুষের পাশে দাঁড়ানোসহ নানান সামাজিক কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত। তারই অংশ হিসেবে এবার সিলেট-সুনামগঞ্জের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে।

কুষ্টিয়াবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে তিনি আরও বলেন, কুষ্টিয়াবাসীর আন্তরিকভাবে আমাদেরকে সহযোগিতা করার কারণেই আমরা এই ব্যবস্থাপনা গুলো করতে পেরেছি। আমাদের ইচ্ছা খুব শিগগিরই ইনশাআল্লাহ আমরা কুড়িগ্রাম সফর করব। সকলের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি।