সকাল ৭:৩০, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







জনপ্রিয় ইউএনও বিতান কুমারের বদলী চান না কুমারখালীবাসী

সামরুজ্জামান (সামুন), কুষ্টিয়া: কুষ্টিয়ার কুমারখালীর জনপ্রিয় ইউএনও খ্যাত বিতান কুমার মন্ডলের বদলী বাতিল করে আরও কিছুদিন নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে চান কুমারখালীবাসী।

বিসিএস ক্যাডার ৩৩ তম ব্যাচের এই কর্মকর্তা ২০২১ সালের ১১ জুলাই ইতিহাস, ঐতিহ্য, শিল্প, সংস্কৃতির তীর্থভূমি কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। তিনি কুমারখালীতে যোগদানের মাত্র ১ বছরের মধ্যেই এ উপজেলার সামাজিক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষা, ক্রীড়া ও সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডসহ সরকারের সকল কর্মসূচী সততার সাথে পালন করে আসছে। এছাড়াও দুস্থ অসহায় মানুষের জন্য বরাদ্দকৃত খাবার ও বিভিন্ন মালামাল সুষ্ঠু বন্টনের কারনেও বেশ প্রশংসিত ও জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে কুমারখালী বাসীর কাছে।করোনাকালীন সময়ে ডেল্টা ভেরিয়েন্টের সংক্রমনে সময় মৃত্যু ঝুঁকি উপেক্ষা করে সরকারের দেওয়া দায়িত্ব সততার সাথে পালন করে গেছেন। তিনি নিজে গিয়ে করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষে বাড়িতে বাড়িতে খাবার পৌঁছে দিয়েছেন।

এছাড়াও তিনি তার অফিস কক্ষকে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছিলেন। এতে করে সাধারণ মানুষ তাদের দুঃখ দুর্দশার কথা সরাসরি তাকে বলতে পাড়তেন। এতে করে সাধারণ মানুষ তাদের সমস্যার সমাধান তৎক্ষনাৎ পেয়ে যেতেন। ইউএনও বিতান কুমার মন্ডলের কাছে গিয়ে কোন অসহায় মানুষ খালি হাতে ফিরে আসতেন না। সরকারি বরাদ্দ না থাকলেও নিজের ব্যক্তিগত অর্থ থেকে সহযোগিতা করেন এই মানবিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এভাবে মানুষের পাশে থেকে সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করার কারনে অল্প দিনেই তিনি সাধারণ মানুষের মন জয় করে নেন কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিতান কুমার মন্ডল।

এমন মানবিক একজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বদলীর খবরে মর্মাহত হয়েছেন উপজেলার সাধারণ মানুষ, শিক্ষক, সংস্কৃতিকর্মী জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ, সাংবাদিকসহ ব্যবসায়ীরা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিতান কুমার মন্ডলের বদলীর খবরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তারা অনেকেই তাদের ব্যক্তিগত প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানানো প্রতিক্রিয়া পাঠকদের জন্য হুবুহু তুলে ধরা হলো-

কুমারখালী পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি এস এম রফিক জানান, কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিতান কুমার মন্ডল তিনি একজন ভালো মানুষ। ভালো কাজ করছিলেন। তার থাকার দরকার ছিলো।

কুমারখালী গোপালপুর জিডি শামসুদ্দিন আহমেদ কলেজিয়েট স্কুলের সহকারী শিক্ষক পলাশ মাহমুদ জানান, একজন মানবিক মনের অধিকারী, কুমারখালিতে তার খুবই প্রয়োজন।

কুমারখালী পাল্টি এলাকার বাসিন্দা সুমি ঘোষ জানান, বিতান কুমার মন্ডলের মত একজন মানুষ আরো কিছুদিন কুমার খালীতে থাকার দরকার ছিল।

লেখক সাস্কৃতিককর্মী ও সাংবাদিক সামরুজ্জামান (সামুন) জানান, একজন প্রগতিশীল সংস্কৃতিমনা মানুষ হিসাবে ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতির রাজধানীর উবর্রভূমি কুষ্টিয়াতে তার মতো প্রশাসকের বিশেষ প্রয়োজন ছিল। যেখানেই থাকুক সৃষ্টিকর্তা যেন তাকে ভাল রাখেন।

প্রসঙ্গত: ২৬ জুলাই খুলনা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের সিনিয়র সরকারী কমিশনা মাহেরা নাজনীন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে কুমারখালী উপজেলার বর্তমান নির্বাহী কর্মকর্তা বিতান কুমার মন্ডলকে স্ব পদে বাগেরহাট জেলার রামপাল উপজেলায় পদায়ন করা হয়েছে এবং খুলনা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে সংযুক্ত থাকা এস. এম. তারেক সুলতানকে কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে। তিনি এর আগে সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলায় সহকারী কমিশন (ভূমি) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ৩৪ তম ব্যাচের বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা।