রাত ৩:২২, ১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







বেগমগঞ্জে পাঁচ আগ্নেয়াস্ত্রসহ চার সন্ত্রাসী আটক

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার মিরওয়ারিশপুর ও নরোত্তমপুর ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষের পর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে দুইটি বন্দুক, তিনটি এলজি ও ছয়টি কিরিচসহ চারজনকে আটক করেছে বেগমগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ।

এ বিষয়ে বুধবার (২৭ জুলাই) বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের হলরুমে আয়োজিত এক  প্রেস বিফ্রিংয়ে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন করেন নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) শহীদুল ইসলাম। এর আগে মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) রাতে অস্ত্রসহ চারজনকে আটক করে পুলিশ।

আটককৃতরা হলেন মোশারফ হোসনে সাগর (২২), আল-আমিন হোসেন ওরফে আকাশ ওরফে মেন্ডেলা (১৯), আরাফাত ওরফে রাফি (২০), ফয়েজ (২৪)।

ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার জানান, সোমবার (২৫ জুলাই) নরোত্তমপুর ইউনিয়নের খেজুরতলা নামক এলাকায় ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে উভয় পক্ষ পালিয়ে যায়।

জানা যায়, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে মিরওয়ারিশপুর ও নরোত্তমপুর ইউনিয়নের দুই সন্ত্রাসী গ্রুপের (মিরওয়ারিশপুর ইউনিয়নের সাইফুল ইসলাম নিরব এবং নরোত্তমপুর ইউনিয়নের সুমন ও রবিন বাহিনী) মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। সংঘর্ষের পর বিরাজমান উত্তেজনা নিরসনের লক্ষ্যে থানা পুলিশ এলাকায় পুলিশী টহল জোরদার করে।

সংঘর্ষের পরে ঘটনাস্থলের আশপাশের এলাকা থেকে থেকে প্রাপ্ত সিসিটিভির ফুটেজ থেকে ঘটনার কিছু ফুটেজ পাওয়া যায় বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে সোমবারের ঘটনার প্রতিশোধ নিতে উভয় গ্রুপ আগ্নেয়াস্ত্রসহ পুনরায় সংগঠিত হচ্ছে। সিসিটিভির ফুটেজ ও গোপন তথ্য পেয়ে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার সময় মিরওয়ারিশপুর ইউনয়েনের  ছালামের দোকান এলাকায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে আসামী মোশারফ হোসেন সাগরকে (২২) আটক করে এবং তার নিকট থেকে একটি একনলা বন্দুক ও ছয়টি কিরিচ উদ্ধার করে।

পরে পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে তার সহযোগী হিসেবে আরও কয়েকজনের নাম উল্লেখ করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বাকীদের আটক করে এবং খেজুরতলা বাজারের শরীফের জেনারেটর দোকানের পাশ থেকে চারটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করে বলে জানান তিনি।

পুলিশ সুপার (এসপি) শহীদুল ইসলাম জানান, আটককৃতদের বিরুদ্ধে বেগমগঞ্জ মডেল থানায় অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করে রিমান্ড আবেদন করা হবে।

এছাড়াও ঘটনার সাথে জড়িত মূল হোতাদের গ্রেপ্তারে পুলিশী অভিযান চলছে বলেও জানান পুলিশ সুপার।