রাত ৪:০৮, ১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







নেত্রকোনায় কমরেড মনি সিংহের ১২১তম জন্মদিন পালিত

প্রর্তিনিধি, নেত্রকোনা: কমরেড মণি সিংহ ছিলেন এ দেশের গণমানুষের এক সমাজতান্ত্রিক নেতা। সারাজীবন তিনি লড়াই করে গেছেন খেটে খাওয়া-মেহনতি মানুষের জন্য। দেশের স্বাধীনতা অর্জন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা এবং সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে তার অবদান অবিস্মরণীয়।

মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রবাসী সরকারের উপদেষ্টা ও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কমরেড মণি সিংহের ১২১তম জন্মদিন আজ। বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) নেত্রকোনার সীমান্তবর্তী দুর্গাপুরে দিনব্যাপী নানা আয়োজনে পালিত হয়েছে এই গুণীজনের জন্মদিন।

দিবসটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকালে পৌর এলাকার কমরেড মনি সিংহ স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে কমরেড মণি সিংহ মেলা উদযাপন কমিটির উদ্যোগে নানান কর্মসূচি পালন করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে ছিল জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, মণি সিংহের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, আনন্দ শোভাযাত্রা, বৃক্ষরোপন,চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরন। এছাড়াও উপজেলার ১৫০জন বন্যার্ত হতদরিদ্রদের মাঝে প্রতিজনকে এক হাজার টাকা করে মোট এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা দেয়া হয়।

মনি সিংহ স্মৃতি জাদুঘর হলরুমে আলোচনা সভায় দুর্গাপুর উপজেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক রুপন কুমার সরকারের সঞ্চালনায় মেলা কমিটির আহ্বায়ক দূর্গা প্রসাদ তেওয়ারীর সভাপতিত্বে মনিসিংহের কর্ম ও ব্যক্তি জীবনের ওপর এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কমরেড মণি সিংহের ছেলে ও সিপিবি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. দিবালোক সিংহ।

সভায় আরও বক্তব্য দেন- উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সোহরাব হোসেন তালুকদার, বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহেদ আলী, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ হক, সুসং আদর্শ বিদ্যানিকেতনের প্রধান শিক্ষক একেএম ইয়াহিয়া, ডিএসকের যুগ্ম পরিচালক মো. আলা উদ্দিন, উপজেলা সুজনের সভাপতি অজয় সাহা, প্রেসক্লাবের সিনিয়র সাংবাদিক মোহন মিয়া, উপজেলা সিপিবির সভাপতি আলকাছ উদ্দিন মীর, উপজেলা সুজনের সভাপতি অজয় সাহা, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোরশেদ আলম, সদস্য শামছুল আলম খান, যুব ইউনিয়ন সভাপতি নজরুল ইসলাম, ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি মাসুদ রানা প্রমুখ।

সবশেষে স্থানীয় শিল্পীদের এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

উল্লেখ্য, কমরেড মণি সিংহ ১৯০১ সালের ২৮ জুলাই কলকাতার এক মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। মাত্র আড়াই বছর বয়সে বাবা কালি কুমার সিংহের মৃত্যু হলে ঢাকায় তার মামা ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট সুরেন সিংহের বাড়িতে চলে আসেন। মণি সিংহের মা সরলা দেবী ছিলেন তৎকালীন ময়মনসিংহ জেলার সুসঙ্গ দুর্গাপুরের জমিদারদের বড় বোন। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠিত হবার পর পূর্ণ গণতন্ত্র ও শোষণ মুক্ত সমাজের আদর্শকে যারা সামনে এনেছেন- মণি সিংহ তাদেরই একজন।

স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে অনুষ্ঠিত পার্টির দ্বিতীয় কংগ্রেসে মণি সিংহ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৮৪ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরেন। ৮৪ বছর বয়স পর্যন্ত সক্রিয়ভাবে পার্টির দায়িত্ব পালন শেষে ১৯৯০ সালের ৩১ ডিসেম্বর তিনি মৃত্যুবরণ করেন।