রাত ১০:১৪, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







দেশে জলাতঙ্কেই বছরে ঝরে ৪০-৫০ প্রাণ: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

জলাতঙ্ক একটি মরণব্যাধি, যা প্রাণি থেকে মানুষ ও প্রাণিতে সংক্রমিত হয়। সাধারণত কুকুর, বিড়াল, বানর, বেজি, শিয়ালের কামড় বা আঁচড়ে এ রোগটি সংক্রমিত হয়। জানা গেছে, বিশ্বে বছরে ৫৯ হাজারেরও অধিক মানুষ এ রোগে মৃত্যুবরণ করেন। বাংলাদেশেও বছরে গড়ে ৪০ থেকে ৫০ জন রোগী মৃত্যুবরণ করেন।

শুধু মানুষই নয়, প্রতি বছর প্রায় ২৫ হাজার গবাদিপশুও জলাতঙ্কে আক্রান্ত হয়ে থাকে দেশে। এ অবস্থায় সচেতনতা ও টিকা প্রয়োগে গুরুত্বারোপ করছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, টিকা নেওয়ার মাধ্যমে শতভাগ মৃত্যুরোধ করা সম্ভব।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, সরকার প্রতি বছর প্রায় ৩ লাখের অধিক জলাতঙ্ক সংক্রমণকারী প্রাণির কামড়-আঁচড়ের রোগীকে বিনামূল্যে জলাতঙ্কের টিকা প্রদান করছে। এর ফলে জলাতঙ্কে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বহুলাংশে হ্রাস পেয়েছে।

এছাড়াও বর্তমানে বৈজ্ঞানিক ভিত্তির ওপর নির্ভর করে পরিবেশে জলাতঙ্কের প্রধান উৎস কুকুরের মধ্যে ব্যাপকহারে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী ভ্যাকসিন প্রদান করা হচ্ছে। কুকুরের টিকাদান (এমডিভি) কার্যক্রমের মাধ্যমে ইতোমধ্যে ৬৪টি জেলায় ১ম রাউন্ড, ১৭টি জেলায় ২য় রাউন্ড এবং ৬টি জেলায় ৩য় রাউন্ড ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রমের মাধ্যমে কুকুরকে প্রায় ২২ লাখ ৫১ হাজার ডোজ জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা প্রদান করা হয়েছে। যা মানুষ ও প্রাণিদেহে জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জুনোটিক ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রামের ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. শ. ম. গোলাম কায়ছার বলেন, সরকারের নানাবিধ স্বাস্থ্য উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের ফলে জলাতঙ্ক রোগের সংক্রমণ কমে এসেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মাধ্যমে সারা দেশে জেলা ও উপজেলা হাসপাতাল পর্যায়ে ৩০০টির অধিক জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র পরিচালিত হচ্ছে।