রাত ৪:৫৩, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ







মানবিক শিক্ষার অভাবে শিক্ষক হত্যা ও জুতার মালা: অধ্যাপক আরেফিন সিদ্দিক

লিয়ন মীর: আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকায় হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে এক শিক্ষার্থীর স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে হত্যা এবং ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে নড়াইলের কলেজ শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনা মানবিক শিক্ষার অভাবে হয়েছে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক।

এই শিক্ষাবিদ বলেন, শিক্ষকের ওপর হামলা ও লাঞ্ছনার ঘটনা সমাজের সবাইকে লজ্জিত করেছে। এমন ঘটনার মূল কারণ হচ্ছে, শিক্ষার্থীদের এখন মানবিকতার শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে না। আমরা শুধু জিপিএ-৫ পেতেই ব্যস্ত হয়ে পড়েছি। মানুষের মানবিকতার শিক্ষাটা বড় দরকার। আমরা শিক্ষার্থীদের ডাক্তার বানাচ্ছি, ইঞ্জিনিয়ার বানাচ্ছি। কিন্তু মানুষ বানাচ্ছি কতটুকু, সেটা ভেবে দেখছি না।

এ শিক্ষাবিদ আরও বলেন, ছাত্রছাত্রীদের মানবিকতার শিক্ষা, সততার শিক্ষা, মূল্যবোধের শিক্ষা, মানুষকে ভালোবাসার শিক্ষা পাঠ্যক্রমে গুরুত্ব দিয়ে পড়াচ্ছি না। এটাই এমন অবক্ষয়ের বড় কারণ। এ ছাড়া নানা কারণ থাকতে পারে।

এক প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক আরেফিন সিদ্দিক বলেন, মানুষ হওয়ার শিক্ষা আমরা শিক্ষাব্যবস্থা থেকে দূরে সরিয়ে দিয়েছি। তাই এসব অমানবিক ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। নড়াইলে শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনা ঘটেছে সরকারের প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে। সবার উপস্থিতিতে একজন অধ্যক্ষকে জুতার মালা পরানো সম্ভব কীভাবে? অধ্যক্ষ কোনো অপরাধ করে থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার অনেক পথ রয়েছে। মানুষকে মর্যাদা না দেওয়ার একটি অপসংস্কৃতি গড়ে উঠেছে আমাদের মধ্যে। এ অপসংস্কৃতি থেকে বের হতে হবে সবাইকে। তা না হলে আমাদের আরও চরম মূল্য দিতে হবে। সরকারের নীতিনির্ধারকরা এ ব্যাপারে ভেবে দেখবেন আশা করি।

প্রসঙ্গত শনিবার দুপুরে আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকায় হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠে শিক্ষক উৎপলকে স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে তারই এক শিক্ষার্থী। এছাড়া ফেসবুকে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) বহিষ্কৃত মুখপাত্র নূপুর শর্মার সমর্থনে কলেজের এক হিন্দু শিক্ষার্থীর পোস্ট দেয়াকে কেন্দ্র করে গত ১৮ জুন দিনভর নড়াইল সদর উপজেলার মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ, সহিংসতা চলে। গুজব ছড়িয়ে দেয়া হয় ওই শিক্ষার্থীর পক্ষ নিয়েছেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস। এরপর পুলিশ পাহারায় বিকেল ৪টার দিকে স্বপন কুমার বিশ্বাসকে ক্যাম্পাসের বাইরে নিয়ে যাওয়ার সময় তাকে দাঁড় করিয়ে গলায় জুতার মালা পরিয়ে দেয় একদল ব্যক্তি। শিক্ষক স্বপন কুমার হাত উঁচিয়ে ক্ষমা চাইতে থাকেন। পরে তাকে তুলে নেয়া হয় পুলিশের গাড়িতে।