রাত ৩:৫৩, ১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







তাইওয়ান ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ারি দিলো চীন

দুই ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে চলা ফোনকলে তাইওয়ানের বিষয়ে একে অপরকে সতর্ক করেছেন যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের প্রেসিডেন্ট।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে বলেছেন, দ্বীপটির মর্যাদা পরিবর্তনে যেকোনো একতরফা পদক্ষেপের বিরোধিতা করে যুক্তরাষ্ট্র। তবে তিনি যোগ করেন, তাইওয়ানের বিষয়ে মার্কিন নীতি পরিবর্তন হয়নি।

বেইজিং জানায়, শি বাইডেনকে এক-চীন নীতি মেনে চলতে আহ্বান জানান এবং তাকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, যে আগুন নিয়ে খেলবে সে পুড়ে যাবে।

মার্কিন হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফরের পরিকল্পনার বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বেড়েছে।

মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট জানায়, পেলোসি সফরের কোনো ঘোষণা দেননি। তবে চীন সতর্ক করে বলেছে, ‘গুরুতর পরিণতি’ হবে যদি তিনি এই ধরনের সফরে যান।

পেলোসি এ সফরে গেলে তিনি হবেন ১৯৯৭ সালের পর থেকে তাইওয়ান সফরকারী সবচেয়ে উচ্চ পদস্থ মার্কিন কর্মকর্তা ও রাজনীতিবিদ।

বাইডেন প্রশাসনের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, বৃহস্পতিবারের ফোন কলের সময় বাইডেন ও শি একটি মুখোমুখি বৈঠকের ব্যবস্থা করার বিষয়েও আলোচনা করেন।

২০১৫ সালে বাইডেন যখন মার্কিন ভাইস-প্রেসিডেন্ট ছিলেন, তখন চীনা নেতা শি যুক্তরাষ্ট্র সফর করেছিলেন। কিন্তু বাইডেন প্রেসিডেন্ট হওয়ার পরে তারা এখন পর্যন্ত সরাসরি সাক্ষাৎ করেননি।

চীন তাইওয়ানকে একটি বিচ্ছিন্নতাবাদী প্রদেশ হিসেবে বিবেচনা করে। তারা মনে করে, তাইওয়ান অবশ্যই দেশের একটি অংশ হয়ে উঠবে। এজন্য শক্তি ব্যবহারের সম্ভাবনাকে অস্বীকার করে না তারা।

এক-চীন নীতির অধীনে, ওয়াশিংটন তাইপেকে কূটনৈতিকভাবে স্বীকৃতি দেয়নি। তবে যুক্তরাষ্ট্র গণতান্ত্রিকভাবে স্বশাসিত দ্বীপটিতে অস্ত্র বিক্রি করে, যাতে এটি আত্মরক্ষা করতে পারে।

সূত্র : বিবিসি