সকাল ৬:৩৯, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







মীরসরাইয়ে ট্রেন দুর্ঘটনা : চিরনিদ্রায় ১১ জন

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে মাইক্রোবাসে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত ১০ জনের দাফন ও একজনের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে।

হাটহাজারীর চিকনদন্ডী ইউনিয়নের খন্দকিয়া ছমদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে শনিবার (৩০ জুলাই) সকাল পৌনে ১০টার দিকে তাদের জানাজা হয়। বেলা ১১টায় তাদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

এর আগে গতকাল শুক্রবার রাতেই দুজনের দাফন করা হয়। সকালে আরও তিনজনকে নিজ নিজ এলাকায় দাফন করা হয়। আর একজনের শেষকৃত্য রাতেই করা হয়েছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য তোফায়েল আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সকাল ১০টার দিকে পাঁচজনের জানাজা হয়েছে। তারা হলেন, রিদোয়ান, সজিব, মারুফ, হাসান এবং নিরু।

জানাজায় উপস্থিত হয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, এখানে যারা মারা গেছে তাদের প্রায় সবাই শিক্ষার্থী। তারা অনেক মেধাবী ছিল। যারা আমাদের ছেড়ে চলে গেছে, আমি তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও গভীর শোক প্রকাশ করছি।

এ সময় চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্রশাসক, হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উত্তরজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

নিহতরা হলেন কোচিং সেন্টারের চার শিক্ষক জিয়াউল হক (২২), মোস্তফা মাসুদ রাকিব (১৯), রিদুয়ান চৌধুরী (২২) ও ওয়াহিদুল আলম (২৩); শিক্ষার্থী সামিরুল ইসলাম হাসান, মোসাহাব আহমেদ (১৬), ইকবাল হোসেন, শান্ত শীল, মোহাম্মদ আসিফ ও সাজ্জাদ হোসেন এবং মাইক্রোবাসচালক গোলাম মোস্তফা (২৬)।

পরিবার থেকে জানানো হয়েছে, জানাজা শেষে নিজ নিজ পারিবারিক কবরস্থান তাদের সমাহিত করা হয়।

এর আগে শুক্রবার রাত ১০টার দিকে চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানা চত্বরে মরদেহগুলো ময়নাতদন্ত ছাড়া স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এদিকে শুক্রবার সন্ধ্যায় গেটম্যান সাদ্দাম হোসেনকে মীরসরাই রেলক্রসিং এলাকা থেকে আটক করে পুলিশ।

এরপর শনিবার ভোরে চট্টগ্রাম রেলওয়ে পুলিশের উপপরিদর্শক জহিরুল ইসলাম বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। আর অবহেলাজনিত হত্যার অভিযোগে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার (২৯ জুলাই) দুপুরে মিরসরাইয়ের খৈয়াছড়া এলাকায় ট্রেনের ধাক্কায় মাইক্রোবাসের ১১ যাত্রী নিহত হন। এ ঘটনায় ছয়জন আহত হয়েছেন। তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।