রাত ১:১১, ১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







টি-টোয়েন্টিতে চতুর্থ বাংলাদেশি হিসেবে বাজিমাত মোসাদ্দেকের

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে চতুর্থ বাংলাদেশি হিসেবে পাঁচ উইকেট শিকার করলেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। রোববার হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৪ ওভারে মাত্র ২০ রানে ৫ উইকেট পান ডানহাতি অফ স্পিনার। এর আগে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ইলিয়াস সানি, সাকিব আল হাসান ও মোস্তাফিজুর রহমান ম্যাচে পাঁচ উইকেট পাওয়ার কীর্তি গড়েছিলেন।

প্রথম ওভারেই জোড়া আঘাত। নিজের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ ওভারে নেন আরো ১টি করে উইকেট। এতে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টিতে ফাইফারের স্বাদ পেলেন তিনি। তার এই বোলিং ফিগার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তো বটেই, তার গোটা ক্রিকেট ক্যারিয়ারেই সেরা।

মোসাদ্দেকের ঘূর্ণিতে দিশেহারা জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ গিয়ে দাঁড়ায় ১৩৬ রানে। মোসাদ্দেক তার পাঁচ উইকেটের যাত্রা শুরু করেছিলেন রেজি চাকাভাকে দিয়ে আর শেষ করেছেন মিল্টন শুম্বাকে বিদায় করে।

মোসাদ্দেক তার প্রথম ওভারেই তুলে নেন দুই উইকেট। স্কোরবোর্ডে কোনও রান যোগ করার আগেই রেজি চাকাভাকে সোহানের ক্যাচ বানিয়ে ফেরান তিনি। প্রথম ওভারের শেষ বলে এবার মোসাদ্দেকের শিকার আগের ম্যাচে দুর্দান্ত খেলে অর্ধশত হাঁকানো ব্যাটার ওয়েসলি মাধেভেরে। অফ স্টাম্পের বাইরের বল খেলতে গিয়ে ব্যাটে লাগিয়েছিলেন তবে সোজা ক্যাচ চলে যায় কাভারে।

নিজের দ্বিতীয় ও দলের তৃতীয় ওভারে মোসাদ্দেকের জিম্বাবুয়ের আরেকটি উইকেট তুলে নেন। এরপর ইনিংসের পঞ্চম ও নিজের তৃতীয় ওভার করতে এসে এ অফ স্পিনারের শিকার শন উইলিয়ামস। মোসাদ্দেককের ওপর আক্রমণাত্মক হতে গিয়ে ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে এসে তার বল উড়িয়ে মারতে গিয়ে ফিরতি ক্যাচ দেন উইলিয়ামস। ৩ ওভার শেষে মোসাদ্দেক ১৪ রান দিয়ে তার ঝুলিতে তুলে নেন ৪ উইকেট। টি-টোয়েন্টিতে এটিই তার সেরা বোলিং ফিগার। এর আগের সেরা ছিল ২১ রানে ২ উইকেট।

ইনিংসের সপ্তম ও নিজের শেষ ওভারে এসে পঞ্চম উইকেটের দেখা পান মোসাদ্দেক। এবার তার শিকার মিল্টন শুম্বা। তার করা ডেলিভারিকে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে মিডউইকেটে হাসান মাহমুদের হাতে ক্যাচ তুলে দেন শুম্বা। এতে করে মোসাদ্দেক শুধু নিজের নয় বাংলাদেশের হয়েও এদিন একটি রেকর্ড গড়েন। বাংলাদেশের কোনো ডানহাতি স্পিনারের জন্য টি-টোয়েন্টিতে এখন পর্যন্ত এটিই সেরা বোলিং। এর আগের রেকর্ডটি ছিল মাহমুদউল্লাহর ১০ রানে ৩ উইকেট।

ঘরোয়া ক্রিকেটের নিয়মিত পারফর্মার হলেও মোসাদ্দেকের জাতীয় দলে জায়গা পাকাপাকি হয়নি। সুযোগ পান, বাদ পড়েন, আবার সুযোগ পান- এই চক্রে ঘুরছে তার ক্যারিয়ার। আজকের দ্যুতি ছড়ানো ও মাইলফলক ছোঁয়া বোলিং তার পায়ের নিচের মাটি শক্ত করতে পারে৷ সামনের কণ্টকাকীর্ণ পথ পেরোনোর আত্মবিশ্বাস দিতে পারে এই বোলিং।