রাত ৪:৪২, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:







মুকুল আসতে শুরু করেছে আমের রাজধানী নওগাঁতে

বিকাশ চন্দ্র প্রামানিক, নওগাঁ প্রতিনিধি: মূলত ধান ও চাল উৎপাদনের জন্য নওগাঁ জেলা বিখ্যাত হলেও গত কয়েক বছর যাবত সুমিষ্ট আম উৎপাদনেও দেশসেরার তালিকায় নাম লিখিয়েছে উত্তরের খাদ্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত বরেন্দ্র অঞ্চলের সীমান্তবর্তি এই নওগাঁ জেলা। বর্তমানে আমের রাজ্য হিসেবে সুনাম কুড়িয়ে আসছে নওগাঁ। ইতিমধ্যেই গাছে গাছে আসতে শুরু করেছে মুকুল।

এদিকে দুয়ারে কড়া নাড়ছে ঋতুরাজ বসন্ত। তাই আমের মুকুলের মিষ্টি ঘ্রাণে কেবলই মৌ মৌ করতে শুরু করেছে চারিদিক। কয়েক দিনের মধ্যেই আমের মুকুলের মিষ্টি গন্ধে সুবাশিত হয়ে উঠবে প্রকৃতি। এসময়টাতে আমের রাজধানী নওগাঁয় মুকুলের যতœ না নিলে আমের ভালো ফলন সম্ভব নয়। আর এ কারণেই আশায় বুক বেঁধে আমচাষিরা শুরু করেছেন পরিচর্যা। মুকুলে যাতে পোকার আক্রমণ না হয় ও ঝরে না পড়ে সেদিকেই নজর রাখছেন আম চাষিরা।

আমচাষীদের দাবি, পূর্বে আম চাষে জেলার ভারতঘেষা সীমান্তবর্তি উপজেলা পোরশা ও সাপাহার বেশি পরিচিত ছিলো। যে দিকে দৃষ্টি যেতো শুধুই ধু ধু ফাঁকা মাঠই চোখে পড়তো। অন্যান্য আবাদের চেয়ে আম চাষ বেশি লাভজনক হওয়ার কারণে ২০০৯ সালের পর থেকে আস্তে আস্তে ধান চাষের পাশাপাশি আম বাগান গড়ে উঠতে শুরু করে। গত ১২বছরে ধানের পাশাপাশি আম চাষাবাদের ফলে পাল্টে গেছে এই এলাকার চিত্র। ভারতীয় সীমান্তবর্তি পোরশা, সাপাহার, নিয়ামতপুর, পত্নীতলা, ধামইরহাট উপজেলাতে বাণিজ্যিক ভাবে গড়ে উঠেছে শত শত বিঘা জমিতে আমের বাগান। এছাড়াও জেলা সদর, বদলগাছী, মান্দা, রাণীনগরসহ অন্যান্য উপজেলাতেও গড়ে উঠছে আমের বাগান।

নওগাঁ জেলা কৃষিসম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে জেলায় ৩০ হাজার হেক্টর জমিতে আমচাষ হয়েছে। যা গতবারের চেয়ে ৫২৫ হেক্টর জমিতে আম চাষ বেশি হয়েছে।

চলতি মৌসুমে উপজেলা ভিত্তিক আম চাষের পরিমাণ হলো-সদর উপজেলায় ৫১০ হেক্টর, রানীনগরে ১৩০, আত্রাইয়ে ১২০ দশমিক ৫, বদলগাছীতে ৫৩০, মহাদেবপুরে ৬৩০, ধামইরহাটে ৬৭৫, সাপাহারে ৯ হাজার ২৫৫, পোরশায় ১০ হাজার ৫৫০, মান্দায় ৪০০ ও নিয়ামতপুরে ১ হাজার ৩৮৪ দশমিক ৫ হেক্টর জমিতে।

সারাদেশে আমের রাজধানী হিসেবে পরিচিত নওগাঁর বিভিন্ন আমবাগান ঘুরে দেখা গেছে, বাগানের সারি সারি গাছে সবুজ পাতার মাঝে আমের মুকুল আসতে শুরু করেছে। সবচেয়ে ছোট ও মাঝারি আকারের গাছে বেশি মুকুল আসছে। গত এক সপ্তাহ আগে থেকেই গাছে মুকুল আসা শুরু হয়েছে। পুরোদমে মুকুল ফুটতে আরও কয়েক সপ্তাহ সময় লাগবে বলছেন বাগান মালিকরা। তবে যে সব গাছে মুকুল আসছে কুয়াশা আর শীতের কারণে মুকুলের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন আম চাষিরা। তাইতো তারা মুকুল ও গাছের পরিচর্যা শুরু করছেন।

সাপাহার উপজেলা সদরের গোডাউন পাড়া এলাকার বরেন্তদ্র এগ্রো পার্কের বাংলাদেশের অন্যতম সফল যুব কৃষি উদ্যোক্তা সোহেল রানা বলেন, ‘৫০ বিঘা জমি বিভিন্ন মেয়াদি লিজ নিয়ে আম বাগান করেছি। তাতে আ¤্রপালি, বারি ফোর, গৌড়মতি ও আশ্বিনা জাতের আম গাছ রয়েছে। এরমধ্যে কিছু আম গাছে মুকুল আসতে শুরু করেছে। পুরোদমে মুকুল আসতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে। তাই এসময় গাছের বাড়তি যতেœর প্রয়োজন। ছোট-বড় আম বাগান পরিচর্যায় সময় ব্যয় করতে হয়। এছাড়াও বাগানের আগাছা পরিষ্কারসহ পোকা দমনে স্প্রে করা হচ্ছে কীটনাশক।’

পোরশা উপজেলার নিতপুরের আমচাষি মাসুদ রানা বলেন, ‘প্রায় এক সপ্তাহ আগে থেকে বাগানের আম গাছে মুকুল আসা শুরু হয়েছে। যেসব গাছে মুকুল এসছে কুয়াশা আর শীতের কারণে মুকুলের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই মুকুল আসার পর থেকেই গাছের প্রাথমিক পরিচর্যা শুরু করেছি। মুকুল রোগ বালাইয়ের আক্রমন থেকে রক্ষা করতে স্থানীয় কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় বালায় নাশক স্প্রে করছেন।’

উপজেলার আরেক আম চাষি রবিউল ইসলাম বলেন, ‘তার আম বাগানের অধিকাংশ গাছেই মুকুল দেখা দিয়েছে। তবে যেসব গাছে মুকুল আসছে প্রায় নতুন গাছ। নতুন গাছ হওযায় আগেভাগেই মুকুল আসতে শুরু করেছে। মুকুলের মাথাগুলোকে পোকা-মাকড়ের আক্রমণ থেকে রক্ষার জন্য স্প্রে করা হচ্ছে। আবহাওয়া ভালো থাকলে চলতি মাসের শেষের দিক থেকে শুরু করে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দিক পর্যন্ত সব গাছে মুকুল দেখা যাবে বলে মনে করছেন তিনি।’

নওগাঁর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আবু হোসেন বলেন, ‘আবহাওয়াগত ও জাতগত কারণেই কিছু গাছে আগাম আমের এই মুকুল আসতে শুরু করেছে। এসব গাছে ফুল ফোটার আগে কীটনাশক ও ছত্রাকনাশক স্প্রে করতে হবে। এতে করে কুয়াশা বা অন্যান্য পোকার যে আক্রমণ কম হবে। তবে কোন ক্রমেই গাছে সেচ দেওয়া যাবে না। এতে করে নতুন করে পাতা জন্মাবে। এই জন্য চাষিদেরর পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘এখনও সব গাছে মুকুল আসেনি। ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাসে পুরোদমে গাছে মুকুল আসবে। তখন শীত কেটে যাবে। তখন আমের মুকুল নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা থাকবে না।’